বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে গণফোরাম সভাপতি বলেন, মূল্যবৃদ্ধির কারণে পরিবহন ও লঞ্চ ধর্মঘট চলায় জনগণ সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় ভাড়া বাড়বে, পরিবহন খরচ বাড়বে, যার প্রভাব বাজারেও পড়বে এবং জনগণকে দুর্ভোগ পোহাতে হবে। এমনিতেই বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়েই চলছে।

ড. কামাল হোসেন আরও অভিযোগ করেন, বাজারের ওপর সরকারের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই বরং অশুভ সিন্ডিকেটের সঙ্গে আঁতাত রয়েছে। তিনি জ্বালানি তেলের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহারের দাবি জানান এবং নিত্যপণ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান।

জ্বালানি মন্ত্রণালয় গত বুধবার রাতে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করে। এরপর ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে গত শুক্রবার অঘোষিতভাবে সারা দেশে বাস, ট্রাক ও অন্য পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেন মালিকেরা।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন