বিতর্ক প্রতিযোগিতার একটি অনুষ্ঠানে আকবর আলি খান বলেন, রাজনৈতিক সরকারের অধীন নির্বাচন হলে নির্বাহী বিভাগ ক্ষমতাসীনদের নির্দেশনার বাইরে যেতে পারে না, এমনকি তারা ভবিষ্যৎ বেনিফিট (সুবিধা) নেওয়ার চিন্তা করে। তাই বাংলাদেশে বর্তমান অবস্থায় শুধু নির্বাচন কমিশনের একার পক্ষে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করা সম্ভব নয়।

বিএনপি নির্বাচনমুখী দল উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা নির্বাচনে বিশ্বাস করি।‌ সেই নির্বাচনে যদি আমরা যেতে চাই তাহলে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের দরকার হবে।’ পাকিস্তানে এত টালমাটাল। এরপরও ওখানে নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হবে বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল।

আওয়ামী লীগ কেন মাওলানা ভাসানীকে স্বীকার করে না, তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, মাওলানা ভাসানী আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। অথচ তারা মাওলানা ভাসানীকে একবারের জন্যও স্বীকার করতে চায় না। মাওলানা ভাসানী বাংলাদেশের গরিব–দুঃখী, মেহনতি মানুষের জন্য তাঁর সারাটা জীবন উৎসর্গ করেছেন বলে উল্লেখ করেন মির্জা ফখরুল। মির্জা ফখরুল মাওলানা ভাসানীর অবদানকে স্মরণে রাখতে মাওলানা ভাসানী ফাউন্ডেশন করার প্রস্তাব করেন।

প্রকাশনা উৎসবে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আনোয়ার উল্লাহ চৌধুরী। বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী, কবি ও সাংবাদিক আবদুল হাই শিকদার প্রমুখ।