বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

১২ বছর ধরে বিএনপির কথিত আন্দোলনের ডাক রাজপথে কোনো কম্পন তুলতে পারেনি উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, জনগণ মনে করে, এসব হাঁকডাক আষাঢ়ে গল্পের মতো। ফেসবুক আর গণমাধ্যমে যতটা গর্জে, বাস্তবে রাজপথে ততটা বর্ষে না।

গত ১৩ বছরের ব্যর্থতার গ্লানি মুছে বিএনপিকে নির্বাচনমুখী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এদিক-ওদিক না ঘুরে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিন। ষড়যন্ত্র করে এক যুগ ধরে কোনো লাভ হয়নি। বাকি সময়ও লাভ হওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিরোধীদের উদ্দেশে বলেন, আন্দোলনের জন্য প্রয়োজন জনঘনিষ্ঠ ইস্যু ও জুতসই সময়। শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও গণমুখী রাজনীতিতে বিরোধী দলগুলো ইস্যুর খরায় ভুগছে। এ জন্যই এই মুহূর্তে দেশে বিএনপির কথিত আন্দোলনের বাস্তব কোনো অবস্থা নেই।

করোনার অভিঘাত মোকাবিলায় সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি দেশের মানুষ এখন নিজের অবস্থান উন্নয়নে প্রাণান্ত প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ সময় গণ-অভ্যুত্থানের দিবাস্বপ্নে বিভোর বিএনপি। তারা ভাবছে, আন্দোলনের ডাক দিলেই মানুষ হুড়মুড় করে বেরিয়ে আসবে। প্রকৃতপক্ষে এসব তাদের আকাশকুসুম ভাবনা। বিএনপি নেতারা যা বলছেন, নিজেরাও তা বিশ্বাস করেন না। এক যুগের বেশি সময় ধরে আন্দোলন ও নির্বাচনের ব্যর্থতা থেকে বিএনপি কোনো শিক্ষা নিতে পারেনি বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের এই নেতা।

ওবায়দুল কাদের দাবি করেন, মানুষের প্রয়োজনে জনগণের পাশে না দাঁড়ালে জনগণও কখনো কোনো রাজনৈতিক দলের আহ্বানে সাড়া দেয় না। এসব বুঝতে পেরেই বিএনপি অগণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতা ফিরে পেতে ব্যাকুল হয়ে দিগ্‌বিদিক ছুটছে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন