default-image

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর কর্নেল তাহের ও জাসদের নেতৃত্বে অভ্যুত্থানের চেষ্টা ইতিহাসের গতি পরিবর্তনের সুযোগ তৈরি করে। কিন্তু জিয়াউর রহমান ও কিছু পাকিস্তানপন্থী সেনা কর্মকর্তা এবং দেশি-বিদেশি প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী সেই চেষ্টাকে চরম প্রতিক্রিয়াশীলতার দিকে ঠেলে দেয়। তিনি ৭ নভেম্বরের ঘটনায় কর্নেল তাহের ‘মহানায়ক’ ও জিয়াউর রহমান ‘খলনায়ক’ বলে মন্তব্য করেন।

আজ শনিবার বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ের শহীদ কর্নেল তাহের মিলনায়তনে ‘সিপাহি-জনতার অভ্যুত্থান দিবস’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় হাসানুল হক ইনু এ কথা বলেন। দিবসটি উপলক্ষে কর্নেল তাহেরের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

হাসানুল হক ইনু বঙ্গবন্ধু হত্যা, জাতীয় চার নেতা হত্যা, ৭ নভেম্বর সিপাহি-জনতার অভ্যুত্থান দমন, খালেদ মোশাররফ হত্যা, কর্নেল তাহেরকে বিচারের নামে প্রহসনে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা, সেনানিবাসগুলোতে অফিসার-সৈনিক হত্যার ঘটনায় তদন্ত করে সত্য উদ্‌ঘাটনে একটি ‘জাতীয় সত্য উদ্‌ঘাটন কমিশন’ গঠন করার আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে হাসানুল হক ইনু বলেন, ৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধা হত্যা, অফিসার হত্যা, সৈনিক হত্যা বা বিপ্লব ও সংহতি দিবস নয়। যারা এত দিন পর্যন্ত দিনটিকে এভাবে চিহ্নিত করেছে, তারা ইতিহাসকে আড়াল করেছে। তারা বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার খুনিদের আড়াল করার ব্যর্থ চেষ্টা চালিয়েছে। তিনি বলেন, দেরিতে হলেও ধামাচাপা দেওয়া সত্য এখন প্রকাশিত। জিয়ার সঙ্গে হাত মিলিয়ে মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি তাদের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে শুরু করে।
সভায় বক্তব্য দেন জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, স্থায়ী কমিটির সদস্য অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন, মীর হোসাইন আখতার, সহসভাপতি ফজলুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নইমুল আহসান, শ্রমিক জোটের সভাপতি সাইফুজ্জামান বাদশা প্রমুখ।

মন্তব্য পড়ুন 0