বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু (৬৭) শনিবার সকালে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তাঁর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে নেতা–কর্মীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। হাসপাতাল থেকে বেলা ১টায় জিয়াউদ্দিন বাবলুর মরদেহ কাকরাইলে জাপার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নেওয়া হয়। সেখানে বিকেল চারটা পর্যন্ত মরদেহ রাখা হয়। এ সময় জাপার চেয়ারম্যান জি এম কাদেরসহ দলের নেতা-কর্মীরা তাঁর কফিনে শেষ শ্রদ্ধা জানান। এরপর মরদেহ তাঁর গুলশানের বাসায় নেওয়া হয়। সেখান থেকে মরদেহ আজাদ মসজিদে নেওয়া হয়।

সাবেক সংসদ সদস্য জিয়াউদ্দিন বাবলুর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিভিন্ন দলের নেতারা শোক বার্তা দিয়েছেন। তাঁরা শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। পারিবারিক সূত্র জানায়, গত ৬ আগস্ট জিয়াউদ্দিন বাবলুর করোনা শনাক্ত হলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে আর বাসায় ফেরা হয়নি তাঁর।

জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু ১৯৫৪ সালে চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্র ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসদ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু। ১৯৮২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ–ডাকসুর জিএস (সাধারণ সম্পাদক) থাকা অবস্থায় সামরিক শাসক এইচ এম এরশাদের জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দেন জিয়াউদ্দিন বাবলু। পরে এরশাদের সরকারে শিক্ষা ও নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী, অর্থ প্রতিমন্ত্রী, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন এবং জ্বালানিমন্ত্রী ছিলেন তিনি।

জাপার চেয়ারম্যান এরশাদ ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জন করলে আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও জিয়াউদ্দিন বাবলু এরশাদপত্নী রওশন এরশাদকে নিয়ে নির্বাচনে যান। ওই সময় নির্বাচনকালীন সরকারে জিয়াউদ্দিন বাবলুকে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা করা হয়েছিল।

জিয়াউদ্দিন বাবলু প্রথম সাংসদ হন ১৯৮৮ সালে। এরপর ২০১৪ সালে চট্টগ্রাম থেকে আবার সংসদ সদস্য হন। এরশাদের জীবদ্দশায় জিয়াউদ্দিন বাবলু দুই বছর জাপার মহাসচিব ছিলেন। ২০২০ সালে জিএম কাদেরের নেতৃত্বে দ্বিতীয় দফায় তিনি জাপার মহাসচিবের দায়িত্ব পেয়েছিলেন।

জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর স্ত্রী অধ্যাপক ফরিদা আক্তার ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে ২০০৫ সালে মারা যান। ২০১৭ সালে এরশাদের ভাগনি মেহেজাবুন্নেসা রহমানকে বিয়ে করেন তিনি। দলের মহাসচিবের মৃত্যুতে শনিবার থেকে সোমবার পর্যন্ত তিন দিনের শোক ঘোষণা করেছে জাতীয় পার্টি। এ সময় তাদের সব কার্যালয়ে দলীয় পতাকা অর্ধনমিত রেখে কালো পতাকা উত্তোলন করা হবে। আজ রোববার দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শোক সভা হবে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন