গত বছরের ১২ ডিসেম্বর খুলনা সদর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ওই মামলা করেন আইনজীবী মো. সাইফুল ইসলাম। মামলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগ আনা হয়।

মামলায় আজ হাইকোর্টে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিনের আবেদন করেন আলাল। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী জয়নুল আবেদীন ও তাজুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন।

পরে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, স্বাস্থ্যগত দিক বিবেচনায় হাইকোর্ট মোয়াজ্জেম হোসেন আলালকে ছয় সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন। এরপর তাঁকে খুলনার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ১ অক্টোবর জাতীয়তাবাদী নাগরিক কমিটি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন। সেই বক্তব্য ইউটিউব ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করা হয়। আসামি কুরুচিপূর্ণ, মানহানিকর, আক্রমণাত্মক ও মিথ্যা তথ্য-উপাত্ত প্রকাশসহ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির উপক্রম ঘটিয়ে গুরুতর অপরাধ করেছেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন