বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিএনপির এই নেতা আরও অভিযোগ করেন, সরকার দেশের স্থিতিশীলতা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে তার সংস্থা দিয়ে কুমিল্লার ঘটনা ঘটিয়েছে।
বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আমাদের সংকট কী? সংকট গণতন্ত্রের, সুষ্ঠু নির্বাচনের, ভোটাধিকারের, যা তারা হরণ করছে, একনায়কতন্ত্র কায়েম করে ক্ষমতা দখল করে আছে।’

জাতীয় প্রেসক্লাবে রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করার সমালোচনা করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘ক্রমেই সরকার গণতান্ত্রিক স্পেস সংকুচিত করছে। পল্টন ময়দান, মানিক মিয়া এভিনিউ, মুক্তাঙ্গনসহ সভা-সমাবেশের জায়গা সংকুচিত করে ফেলছে সরকার। এখন প্রেসক্লাবও বন্ধ করে দিল।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কোভিড–১৯–পরবর্তী জটিলতায় ভুগছেন বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল। চিকিৎসকেরা সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন, তবে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিশ্বের উন্নত হাসপাতালে হওয়া দরকার বলে জানান তিনি।
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বাংলাদেশে সম্ভব নয়। তাঁকে সম্পূর্ণভাবে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়া দরকার।’ তিনি আরও বলেন, ‘খালেদা জিয়ার জামিন প্রাপ্য। তাঁকে মুক্তি দিতে হবে, যাতে তিনি সুচিকিৎসা নিতে পারেন।’

সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি নূর আফরোজ বেগম জ্যোতি। বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য হাবিবুল ইসলাম হাবিব, ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ইসহাক সরকারসহ সংগঠনের নেতারা।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন