বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জাকের পার্টির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব শামীম হায়দার প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা যে চারটি প্রস্তাব দিয়েছেন, তা মেনে নিলে সুষ্ঠু ভোট সম্ভব।

সংলাপে কল্যাণ পার্টির ছয় সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন দলের মহাসচিব আবদুল আউয়াল। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপে দলটি বলেছে, এর আগে সার্চ কমিটির মাধ্যমে স্বাধীন নির্বাচন কমিশন গঠন করা যায়নি। ইসি গঠনে এখনো আইন করার মতো যথেষ্ট সময় ও সুযোগ রয়েছে। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচন চায় দলটি। নিবন্ধিত সব দলের প্রতিনিধি, সামরিক বাহিনীর প্রতিনিধিসহ সমাজের সব স্তরের পেশাজীবীদের সম্মিলনে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের প্রস্তাব রাষ্ট্রপতির কাছে তুলে ধরে কল্যাণ পার্টি। তারা বলেছে, এই সরকারের নাম ‘আপৎকালীন সরকার’, ‘জরুরি সরকার’, এমনকি ‘দেশরক্ষা সরকার’ হিসেবেও উল্লেখ করা যেতে পারে।

default-image

অন্যদিকে বিজেপির চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমানের নেতৃত্বে সাত সদস্যের প্রতিনিধিদল রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপে অংশ নিয়েছে। দলটি আইন অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন গঠন ও সামরিক বাহিনীকে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় সহযোগী শক্তি হিসেবে সম্পৃক্ত করার প্রস্তাব দিয়েছে।

default-image

সংলাপ শেষে আন্দালিব রহমান প্রথম আলোকে বলেন, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের প্রস্তাব করেছেন তাঁরা। সার্চ কমিটির মাধ্যমে ইসি গঠন কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়, এ কথাও সংলাপে তাঁরা বলেছেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন