বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নিরপেক্ষ ও নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। নির্বাচনের আগে একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে। এর মধ্য দিয়েই একটি নতুন সরকার গঠিত হবে। ’

আলোচনা সভায় বিএনপির মহাসচিব যুবদলকে স্বপ্ন দেখতে শুরু করার অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, ‘যুবদল যেন স্বপ্ন দেখে একটি আধুনিক রাষ্ট্রের, একটি আধুনিক জাতি গঠনের। স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান যখন যুবদল প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, তখন তিনি এমন একটি সংগঠন করতে চেয়েছেন, যেটি ভবিষ্যতে বিএনপিকে নেতৃত্ব দেবে, রাষ্ট্রকে নেতৃত্ব দেবে এবং জাতি গঠনে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখবে। বিগত ৪৩ বছরে যুবদল নিঃসন্দেহে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পেরেছে। ’

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশের যে সংকটময় মুহূর্ত, এ মুহূর্তে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করতে হবে যুবদলকে। যুবশক্তিকে কাজে লাগিয়ে সারা দেশের মানুষকে সংগঠিত করে দানবীয় যে সরকার বুকের ওপর চেপে বসে আছে, তাদের পরাজিত করতে হবে। যে সরকার দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে দীর্ঘদিন ধরে আটক করে রেখেছে, আমাদের স্বপ্নের নেতা তারেক রহমানকে নির্বাসিত করে রেখেছে, অসংখ্য নেতা-কর্মীকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে, তাদের পরাজিত করতে যুবদলকে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখতে হবে। ’

নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আমরা পরিষ্কার করে বলেছি, আমরা এ সরকারের পরিবর্তন চাই। এই যুবকেরাই সেই পরিবর্তন আনতে পারে। সেই পরিবর্তন আনতে অবশ্যই আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটাতে হবে। ’

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায়; দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমান উল্লাহ আমান ও আবদুস সালাম; যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম। সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন