default-image

বিভিন্ন স্থানে প্রদর্শিত পথ নাটক ‘ইনডেমনিটি’র কড়া সমালোচনা করে বিএনপির নেতা রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে নিয়ে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ বহুমাত্রিক ‘উদ্ভট ও বিকৃত মিথ্যাচার’ করেই ক্ষান্ত হয়নি, এখন তাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সাঙ্গ-পাঙ্গরা কুৎসিত মনোবৃত্তি নিয়ে মাঠে নেমেছে।
আজ শুক্রবার সকালে ঢাকার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী এ কথা বলেন।

রিজভী বলেন, সাংস্কৃতিক অঙ্গনের কতিপয় পদলেহী, অর্বাচীন, অসুস্থ লোক ইতিহাস বিকৃত করার প্রক্রিয়ায় জিয়াউর রহমানকে খাটো করার অপচেষ্টায় নিরন্তর কাজ করছে। এক ব্যক্তি আওয়ামী লীগের নেকনজর পাওয়ার জন্য ‘ইনডেমনিটি’ নামে একটি বিকৃত নাটক লিখে সাংস্কৃতিক জোটের নামে সারা দেশে মঞ্চায়ন করে বেড়াচ্ছে। তারা নতুন প্রজন্মের সামনে সম্পূর্ণ মিথ্যা এক বিকৃত ইতিহাস দাঁড় করানোর হীন প্রচেষ্টা তুলে ধরেছে এই নাটকের কল্পিত গল্পে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, এই নাটকে দেখানো হয়েছে, জিয়াউর রহমানের নির্দেশে নাকি ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর খন্দকার মোশতাক ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করেছিলেন। অথচ ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, মরহুম শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবাই ছিলেন আওয়ামী লীগের। সেখানে শহীদ জিয়াউর রহমানের দূরতম কোনো ভূমিকাও ছিল না। ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর তারিখে আওয়ামী লীগ নেতা তৎকালীন রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমেদ ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করেন।এ ছাড়া এই নাটকে খুনি ও খল চরিত্র এমনভাবে সাজানো হয়েছে, যাতে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লাগে।

বিজ্ঞাপন

রুহুল কবির রিজভী বলেন, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় সংগঠিত এই ষড়যন্ত্রকে জনগণ শুধু ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যানই করছে না, স্বাধীনতার ঘোষক ও রণাঙ্গনের বীর সেক্টর কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা শহীদ জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও তাঁর চরিত্র হননের অপপ্রয়াসের জন্য আপামর জনগণ দারুণভাবে ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত। তিনি হুঁশিয়ার করে বলেন, এই দিন দিন না সামনে আরও দিন আছে। দেশের জনগণই এর উপযুক্ত জবাব দেবে। এই নাটকের রচয়িতা, পরিচালক, নির্দেশক, অভিনেতা-কলাকুশলীদের জনগণ মনে রাখবে।

রিজভী ‘ইনডেমনিটি’র নামে জিয়াউর রহমানের চরিত্রহননকারী নাটক নির্মাণের তীব্র নিন্দা ও ধিক্কার জানান। একই সঙ্গে এই নাটকের সঙ্গে সম্পৃক্ত ও নেপথ্যের কুশীলবদের উদ্দেশে বলেন, মধ্যরাতের নির্বাচনে ক্ষমতায় চেপে বসা এই সরকার কখনোই সুষ্ঠু রাজনীতি ও গণতন্ত্রকে বিশ্বাস করে না। সীমাহীন লুটতরাজ, খুন-গুম, ক্রসফায়ারসহ নৈরাজ্য এবং রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের দ্বারা গত সাড়ে ১২ বছর দেশকে নরকে পরিণত করেছে। এ সব নিয়ে আপনারা নীরব কেন? এ সব নিয়ে আপনাদের নাটক কোথায়?

মন্তব্য পড়ুন 0