বিজ্ঞাপন

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জি এম কাদের আজ রোববার এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, প্রায় ১০০ বছর আগে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট তৈরি করে ব্রিটিশ সরকার। ব্রিটিশ রাজাদের রাজত্ব কায়েম রাখার জন্য এ আইন ব্যবহৃত হয়েছে, যা এখন অপ্রয়োজনীয়। তাই অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা নজিরবিহীন। স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে ব্রিটিশদের তৈরি অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট এখন মেয়াদোত্তীর্ণ কালো আইন। উপমহাদেশে এই আইনে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে শাস্তির নজির নেই।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট সংবিধান, গণতন্ত্র ও তথ্য অধিকার আইনের পরিপন্থী। ব্রিটিশ সাম্রাজ্য টিকিয়ে রাখতে করা এই আইন এখন অপ্রয়োজনীয়। তাই অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাস্টে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামনা চলতে পারে না।

বিবৃতিতে জি এম কাদের আরও বলেন, সংবিধান অনুযায়ী বিদেশের সঙ্গে সব চুক্তি সংসদে উপস্থাপন করতে হবে। তা ছাড়া টিকা কেনাকাটা কখনোই রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা হতে পারে না। তিনি বলেন, সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়েছে। অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট রোজিনার বিরুদ্ধে প্রযোজ্য নয়। তা ছাড়া দেশের টাকায় টিকা কেনাকাটার খবর জানার অধিকার জনগণের রয়েছে। এ কারণে তথ্য সংগ্রহ কখনোই চুরি হতে পারে না। তাই দৈনিক প্রথম আলোর অনুসন্ধানী প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন