বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিতাই রায় আওয়ামী লীগ সরকারকে উদ্দেশ করে বলেন, এটা জনগণের সরকার নয়। ভোটে নির্বাচিত হলে জনগণের সরকার হয়। অবৈধ, দুর্বল সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকতে রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে বলপ্রয়োগ করে। এ কারণে নোয়াগাঁওয়ের মতো ঘটনা ঘটে। দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন থাকলে এসব ঘটনা ঘটত না।

বিএনপির প্রতিনিধিদলের পক্ষ থেকে অবিলম্বে নোয়াগাঁওয়ের ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাইকে গ্রেপ্তারের দাবি জানানো হয়। বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সাংসদ কলিম উদ্দিন আহমদ, সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলামসহ দলের অঙ্গ–সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
পরে জেলা বিএনিপর পক্ষ থেকে গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে এক লাখ পাঁচ হাজার টাকা এবং বিএনপির নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের পক্ষ থেকে আরও ২০ হাজার টাকা সহায়তা দেওয়া হয়।

নোয়াগাঁও গ্রামের মানুষের বাড়িঘরে গত বুধবার সকালে পার্শ্ববর্তী চারটি গ্রামের লোকজন লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা করেন। এতে ৯০টি ঘরবাড়ি ও মন্দির ক্ষতিগ্রস্ত হয়। হামলাকারীরা এ সময় লুটপাট চালান। ঘরের জিনিসপত্র ও টাকাপয়সা নিয়ে যান। খবর পেয়ে প্রশাসন ও পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। এ ঘটনায় শাল্লা থানায় দুটি মামলা হয়েছে। এ পর্যন্ত পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে ৩০ জনকে।

পুলিশ, জনপ্রতিনিধি ও ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার দিরাই উপজেলা শহরে আয়োজিত এক সমাবেশে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী ও মাওলানা মামুনুল হক বক্তব্য দিয়ে গেছেন। পরে মাওলানা মামুনুল হককে নিয়ে নিজের ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট দেন বলে অভিযোগ ওঠে নোয়াগাঁও গ্রামের যুবক ঝুমন দাসের (২৮) বিরুদ্ধে। বিষয়টি নিয়ে নোয়াগাঁও পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলোর মানুষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে মঙ্গলবার রাতে নোয়াগাঁও গ্রামবাসীই ঝুমনকে পুলিশে ধরিয়ে দেন। বুধবার সকালে আশপাশের শাল্লা উপজেলার কাশিপুর, দিরাই উপজেলার নাসনি, সন্তোষপুর ও চণ্ডীপুর গ্রামের মানুষ লাটিসোঁটা নিয়ে নোয়াগাঁও গ্রামের পাশের ধারাইন নদের তীরে গিয়ে অবস্থান নেন। পরে সেখান থেকে শতাধিক লোক লাঠিসোঁটা নিয়ে নোয়াগাঁও গ্রামে দিয়ে মানুষের বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলা চালান।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন