বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পোশাকশিল্পের বহুমুখীকরণে সাইফুর রহমানের চিন্তার কথা তুলে ধরে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘শুধু গার্মেন্টেসে তিনি থাকতে চাননি। পোশাকশিল্পটাকে অনেক সময় ব্যঙ্গ করে বলতেন, “তুমি শুধু দরজির একটা শিল্প বানাইবা।” তিনি চাইতেন যে এই শিল্প থেকে সারপ্লাস যে ক্যাপিটালটা আসবে, সেই অর্থ দিয়ে বাংলাদেশে ভারী শিল্প তৈরি হবে। অর্থাৎ বাংলাদেশকে একটা ম্যানুফেকচারিং কান্ট্রি হিসেবে তৈরি করতে তিনি চেয়েছিলেন। যে কাজ তিনি শুরু করেছিলেন ইপিজেডগুলোর মাধ্যমে।’

তিনি বলেন, সাইফুর রহমান কতগুলো মৌলিক কাজ করেছিলেন। ভ্যাট প্রবর্তন করেছেন চরম বিরোধিতার মুখে, যার ফলে বাংলাদেশের রাজস্ব আহরণ অনেক অনেক গুণ বেড়ে গেছে। সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার দিকনির্দেশনায় নারীশিক্ষার ক্ষেত্রে যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছিলেন তিনি। প্রাথমিক শিক্ষায় দরিদ্র শিশুদের নিয়ে আসার জন্য তিনি শিক্ষার বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচি প্রবর্তন করেছিলেন। এসব ছিল তাঁর সৃজনশীল পদক্ষেপ।

default-image

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এম সাইফুর রহমান সাহেব এমন একজন ব্যক্তিত্ব ছিলেন, যিনি ব্যক্তি হিসেবে, পেশাজীবী হিসেবে, অর্থনীতিবিদ হিসেবে, রাজনীতিবিদ হিসেবে, মন্ত্রী হিসেবে সব ক্ষেত্রে শুধু সফল নন, দিকনির্দেশনা রেখে গেছেন। বিএনপি তাঁকে নিয়ে গর্ব বোধ করে।

সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সাইফুর রহমান স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে এই ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভা হয়।
২০০৯ সালের ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকা থেকে নিজ গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজারে যাওয়ার পথে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান সাইফুর রহমান।

সাইফুর রহমান স্মৃতি পরিষদের সদস্যসচিব এম কাইয়ুম চৌধুরীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান, এ জেড এম জাহিদ হোসেন, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ বক্তব্য দেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন