বিএনপি লোগো
ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রাম নগরের কাজীর দেউড়িতে আজ  বৃহস্পতিবার রোডমার্চ-পরবর্তী সমাবেশের অনুমতি পায়নি বিএনপি। তবে দলীয় কার্যালয়ের সামনের নেভাল অ্যাভিনিউ সড়কে সমাবেশের অনুমতি মিলেছে।

সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের। প্রধান বক্তা থাকবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। গত ১৯ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া ১৫ দিনের রোডমার্চ কর্মসূচি চট্টগ্রাম দিয়ে শেষ হবে আজ। কুমিল্লা থেকে শুরু হয়ে ফেনী, মিরসরাই হয়ে নেভাল সড়কে এসে শেষ হবে রোডমার্চ কর্মসূচি।

বিএনপি নেতারা জানান, সমাবেশে কেন্দ্রীয় নেতারা বিশেষ বার্তা দিতে পারেন। আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচির ঘোষণাও আসতে পারে। অতীতের যেকোনো সমাবেশের চেয়ে এবার বিপুল লোকসমাগম হবে বলে ধারণা নেতা-কর্মীদের। এতে কমপক্ষে ১৫ লাখ লোকের উপস্থিতি হতে পারে।

কেন্দ্রীয় নেতারা কী বার্তা দিতে পারেন, জানতে চাইলে বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান প্রথম আলোকে বলেন, শেষবারের মতো সরকারকে সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হতে পারে, যাতে ক্ষমতা ছেড়ে দেয়। এ ছাড়া দলের মহাসচিব তাঁর বক্তব্যে সরকার ও নেতা-কর্মীদের নতুন বার্তা দেবেন।

এদিকে সমাবেশে উপস্থিত হতে কক্সবাজার, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটির বিএনপি নেতা-কর্মীদের অনেকে বুধবার চট্টগ্রাম এসে পৌঁছেছেন। নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন দলে ভাগ হয়ে আগেভাগে চলে এসেছেন, যাতে আজ বৃহস্পতিবার আসার পথে বাধার সম্মুখীন না হন। নগর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা রোডমার্চ-পরবর্তী সমাবেশকে ঘিরে উজ্জীবিত।

নগর পুলিশের উপকমিশনার (নগর বিশেষ শাখা) মঞ্জুর মোরশেদ গতকাল সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে বলেন, বৃহস্পতিবার সপ্তাহের শেষ কর্মদিবস। শহরে যানজটসহ সব বিষয় বিবেচনা করে কাজীর দেউড়িতে না দিয়ে নেভাল অ্যাভিনিউ সড়কে সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছে বিএনপিকে।

সমাবেশকে ঘিরে পুলিশের পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

নগর বিএনপির আহ্বায়ক শাহাদাত হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘কাজীর দেউড়ি চেয়ে আমরা পাইনি। তাতে তেমন অসুবিধা হবে না। নেভাল অ্যাভিনিউ সড়কের মুখে মঞ্চ তৈরি করা হবে।’