বিবৃতিতে বলা হয়, সরকার ইতিহাস থেকে কোনো শিক্ষা নেয়নি। দিনাজপুরের ইয়াসমিন হত্যা–পরবর্তী নিষ্ঠুরতা, দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে হত্যাকাণ্ড, সারের দাবিতে কৃষক ও মজুরির দাবিতে পাটকলশ্রমিকের ওপর গুলি চালিয়ে বিএনপি গদি ধরে রাখতে পারেনি।

দেশ আইনের শাসনে চলছে না উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, ক্ষমতার দম্ভে, আধিপত্য বিস্তারে সরকারি দল নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছে, রক্ত ঝরাচ্ছে। নানা ধরনের অস্ত্রের মহড়া প্রকাশ্যে প্রদর্শিত হচ্ছে।

এ ধরনের দমন-পীড়ন, হত্যাকাণ্ড চালিয়ে বর্তমান সরকারও গদি রক্ষা করতে পারবে না। শাসকশ্রেণির দলগুলোর এই দমন-পীড়নের রাজনীতি বছরের পর বছর চলছে।

দেশ আইনের শাসনে চলছে না উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, ক্ষমতার দম্ভে, আধিপত্য বিস্তারে সরকারি দল নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছে, রক্ত ঝরাচ্ছে। নানা ধরনের অস্ত্রের মহড়া প্রকাশ্যে প্রদর্শিত হচ্ছে।

সম্প্রতি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে সরকারি দলের ছাত্রসংগঠনের কমিটি গঠনকে সামনে রেখে যে ‘নারকীয়’ ঘটনা ঘটেছে, তার বিচার হওয়া নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে বিবৃতিতে। হত্যা, হামলা, মামলা, দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে মানুষকে সোচ্চার হয়ে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম গড়ে তোলার আহ্বান বিবৃতিতে জানানো হয়।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন