রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আজ মঙ্গলবার এক বিক্ষোভ সমাবেশে আমার বাংলাদেশ পার্টির (এবি পার্টি) নেতারা এ অভিযোগ করেন।

এবি পার্টির নেতারা বলেন, মানুষ যখন জীবন বাঁচানো নিয়ে ভীতসন্ত্রস্ত থাকবে, তখন তারা অর্থ পাচার, রিজার্ভ লুট, গুম, খুন, মানবাধিকার লঙ্ঘন, প্রশ্নপত্র ফাঁস, ভোট ডাকাতি—এসব নিয়ে চিন্তা করার সুযোগ পাবে না। এখনকার আওয়ামী লীগের চরিত্রের সঙ্গে ব্রিটিশ ও পাকিস্তানি শোষকদের চরিত্রের মিল পাওয়া যাচ্ছে। তাই আজ হোক, কাল হোক, তাদের চূড়ান্ত পতন আসন্ন।

তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের বাড়তি দামের কারণে পরিবহন খরচ থেকে শুরু করে সেচের খরচ বেড়ে যাওয়ায় চাল-ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের উৎপাদন ও খুচরা মূল্য ভোক্তাদের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে। এলসি করতে না পারা ব্যবসায়ীরা ইতিমধ্যেই যেমন কাঁচামাল আমদানি করতে পারছেন না, তেমনি রপ্তানিও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

এবি পার্টির সদস্যসচিব মজিবুর রহমান মঞ্জু বলেন, ‘সরকার নিত্যব্যবহার্য সবকিছুর দাম বাড়িয়ে মানুষকে চরম কষ্টে ফেলে দিয়েছে। দেশের সবাই আছে দুঃখে, শুধু আওয়ামী লীগ নেতারা আছেন সুখে। গ্যাস–সংকটে মানুষ রান্না করতে পারছে না, বিদ্যুতের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ নিশ্চিত না করে তারা বারবার দাম বাড়াচ্ছেন, এগুলো সবই জনবিচ্ছিন্নতার লক্ষণ।’

মজিবুর রহমান আরও বলেন, ‘তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের বাড়তি দামের কারণে পরিবহন খরচ থেকে শুরু করে সেচের খরচ বেড়ে যাওয়ায় চাল-ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের উৎপাদন ও খুচরা মূল্য ভোক্তাদের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে। এলসি করতে না পারা ব্যবসায়ীরা ইতিমধ্যেই যেমন কাঁচামাল আমদানি করতে পারছেন না, তেমনি রপ্তানিও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।’

বিক্ষোভ সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন এবি পার্টির যুগ্ম সদস্যসচিব আসাদুজ্জামান, যোবায়ের আহমদ ভূঁইয়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক বি এম নাজমুল হক, দপ্তর সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন, অর্থ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, এবি যুব পার্টির আহ্বায়ক এ বি এম খালিদ হাসান, ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আলতাফ হোসেইন প্রমুখ।