জাহাঙ্গীর কবির নানক
ফাইল ছবি

নির্বাচন ছাড়া বিএনপির রক্ষা পাওয়া বা নিজেকে রক্ষা করার আর কোনো উপায় নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক।

আজ রোববার রাজধানীর মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে নানক এ মন্তব্য করেন।

গত বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে কৃষি মার্কেটে আগুন লাগে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। অগ্নিকাণ্ডে প্রায় আড়াই শ দোকান পুড়ে যায়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন পাঁচ শতাধিক ব্যবসায়ী।

আরও পড়ুন

মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটে আগুনে ২১৭ দোকান ক্ষতিগ্রস্ত: ডিএনসিসি

বিএনপির রোডমার্চের কর্মসূচি প্রসঙ্গে নানক বলেন, তারা যেকোনো মার্চ করতে পারে। এই রোডমার্চ করতে করতে যেন বাংলাদেশের মানুষ নির্বাচন করে ফেলে। তাদের (বিএনপি) যা যা করণীয় শান্তিপূর্ণভাবে করুক।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এই সদস্য বলেন, বিএনপি ভুল পথ ছেড়ে নির্বাচনের পথে এলে তিনি তাদের অভিনন্দন জানাবেন। নির্বাচন ছাড়া বিএনপির রক্ষা পাওয়ার, নিজেকে রক্ষা করার আর কোনো উপায় নেই।

মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটে কীভাবে আগুন লেগেছে, তা বের করতে মার্কেট কমিটিকে একটি তদন্ত কমিটি করার জন্য আহ্বান জানান ঢাকা-১৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য নানক। তিনি বলেন, সরকারের তদন্ত কমিটির পাশাপাশি মার্কেট কমিটিও একটা তদন্ত কমিটি করুক। কীভাবে আগুন লেগেছে, তা তারা বের করুক। কী দুর্বলতা ছিল, কী দুর্বল দিক ছিল, তা তারা বের করুক।

আরও পড়ুন

‘এক দফা’ দাবিতে এবার ১৫ দিনের কর্মসূচি নিয়ে আসছে বিএনপি

ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে নানক বলেন, যাঁর যেখানে দোকান ছিল, সেখানেই তাঁকে বরাদ্দ দিতে হবে। এখানে তাঁরা আকাশকুসুম কল্পনা করতে চান না। ৬ তলা, ৯ তলা, ১৪ তলা মার্কেট কবে হবে—এই ভরসায় মানুষগুলো অনিশ্চয়তায় থাকতে পারেন না। দোকানমালিক, দোকানিরা যা চাইবেন, তা–ই হবে। এর বাইরে কিছু হবে না। তাঁরা এর বাইরে কিছু করতে দেবেন না।

দোকান বরাদ্দ প্রসঙ্গে নানক বলেন, এখানে কেউ বঞ্চিত হবেন না। অসাধু চিন্তা বাস্তবায়নের কোনো সুযোগ নেই। তিনি মেয়রের সঙ্গে আলাপ করবেন। সরকারের তরফ থেকে সব বিষয় তদারক করা হবে। প্রধানমন্ত্রী আজ নিউইয়র্কে গেছেন। তিনি দেশে ফিরলে তাঁর সঙ্গে তিনি এ বিষয়ে কথা বলবেন।

আরও পড়ুন

রোডমার্চ শেষ হবে সেদিন, যেদিন সরকারের পতন ঘটাতে পারব: রংপুরে মির্জা ফখরুল

কৃষি মার্কেট পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সৈয়দ হাসান নূর ইসলাম, ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আসিফ আহমেদ সরকার, ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজ মাহমুদ। এ ছাড়া মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও কৃষি মার্কেটের বাজার কমিটির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।