দলের প্রতিষ্ঠাতা এইচ এম এরশাদের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে শ্যামপুর-কদমতলী থানা জাতীয় পার্টি এই সমাবেশের আয়োজন করে। সমাবেশে জাপার চেয়ারম্যান শ্রীলঙ্কার মতো পরিস্থিতি বাংলাদেশেও হতে পারে এবং ঋণের দায়ে বাংলাদেশ দেউলিয়া হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী জি এম কাদের আরও বলেন, দেশের ঋণের পরিমাণ ১৬ লাখ কোটি টাকা। ভবিষ্যতে সুদসহ এই ঋণ পরিশোধ করতে হবে। তখন দেশের অবস্থা ভয়াবহ হতে পারে।

বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে অনেক মিল রয়েছে উল্লেখ করে জাপার চেয়ারম্যান বলেন, ১০ বছরের গৃহযুদ্ধেও শ্রীলঙ্কা দেউলিয়া হয়নি। শুধু ঋণের বোঝা টানতে গিয়ে শ্রীলঙ্কা দেউলিয়া হয়েছে। শ্রীলঙ্কার মতো বাংলাদেশেও একই রাজনৈতিক বাস্তবতা। এ কারণেই বাংলাদেশে শ্রীলঙ্কার মতো ভয়াবহ পরিস্থিতি হতে পারে। দুটি দেশেই কোথাও জবাবদিহি নেই।

বিরোধীদলীয় উপনেতা বলেন, ‘দেশের জন্য রাজা পেতে মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদেরা জীবন দেননি। মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে জনগণের প্রতিনিধি পেতে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা প্রতিনিধি পাইনি, পেয়েছি জনগণের রাজা। এমন দেশের জন্য মুক্তিযুদ্ধ হয়নি।’

২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটকে ‘ঋণনির্ভর বাজেট’ বলে উল্লেখ করেন জি এম কাদের। তিনি বলেন, এই বাজেটে খেটে খাওয়া মানুষের জন্য ও বেকারত্ব কমাতে কোনো বরাদ্দ নেই। গত অর্থবছরেও লক্ষ্য অনুযায়ী কর আদায় হয়নি। এবার লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী কর আদায় না হলে ঋণ করে কর্মকর্তাদের বেতন–ভাতা দিতে হবে। ব্যাংকগুলোতে টাকা থাকবে না। ভয়াবহ অবস্থার দিকে যাচ্ছে দেশ। দ্রব্যমূল্য বেড়েই চলছে। সেদিকে সরকারের নজর নেই।

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহিদুর রহমান, সুনীল শুভ রায়, মীর আবদুস সবুর, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা মনিরুল ইসলাম, হারুন অর রশীদ, ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান খান, আমির উদ্দিন, যুগ্ম মহাসচিব ফখরুল আহসান, জাতীয় ছাত্রসমাজের সভাপতি মো. ইব্রাহিম খান প্রমুখ। এতে সভাপতিত্ব করেন জাপার কো-চেয়ারম্যান ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন