বিএনপির সমালোচনা করে ক্ষমতাসীন দলের জ্যেষ্ঠ নেতা আবদুর রাজ্জাক বলেন, ‘বিএনপির পায়ের নিচে মাটি নেই। ২০০১-০৬ সালে ক্ষমতায় থেকে তারা নিজেদের কবর নিজেরাই খুঁড়েছে। সেই সময় জঙ্গি ও সন্ত্রাসী দিয়ে দেশে তাণ্ডব সৃষ্টি করেছে; দেশটাকে লুটপাট করে শত শত কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। সেই টাকায় তারেক জিয়া এখন লন্ডনে বসে খাচ্ছে, সিনেমা দেখছে এবং রিমোট কন্ট্রোলে দল চালাচ্ছে।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম এই সদস্য আরও বলেন, ‘জিয়াউর রহমান জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ষড়যন্ত্রে ভূমিকা রেখেছিল। আর তার ছেলে তারেক জিয়া বিদেশে থেকে ষড়যন্ত্র করছে। এ ষড়যন্ত্রকে আওয়ামী লীগের নেতা–কর্মীরা কঠোরভাবে মোকাবিলা করবে।’

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সারাক্ষণ ভাঙা রেকর্ড বাজিয়ে চলেছেন বলে মন্তব্য করেন আবদুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, ‘বিএনপি ও মির্জা ফখরুলরা এখনো ষড়যন্ত্র লিপ্ত। দেশে পদ্মা সেতু চালু হয়েছে, সেতু দিয়ে গাড়ি চলাচল করছে—এটি এখনো মির্জা ফখরুল স্বীকার করতে চান না। জনশুমারিতে সরকার জনসংখ্যা কম দেখিয়েছে বলেও ডাহা মিথ্যাচার করছেন। দেশে ২০ কোটি মানুষ দেখালে মনে হয় মির্জা ফখরুল খুশি হতেন।’

পরিসংখ্যানবিদ, বিশেষজ্ঞ, বিজ্ঞানী, মাঠকর্মী, তথ্য সংগ্রহকারীদের সমন্বয়ে যথাযথ প্রক্রিয়ায় জনশুমারি হয়েছে উল্লেখ করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে জনসংখ্যা কম বা বেশি দেখানোর সুযোগ নেই। সরকার জনসংখ্যা কম দেখাবে কেন; বরং বেশি দেখানোর কথা।’

সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মো. কামরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন