বিএনপি প্রতিদিন আন্দোলনের হুমকি দেয় কিন্তু তাদের আন্দোলনের নেতা কে, সেটাই তারা জানে না বলে মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি এ প্রসঙ্গে বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান—দুজনই দণ্ডপ্রাপ্ত।

একজন এতিমের টাকা আত্মসাৎ করায় দণ্ডপ্রাপ্ত। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার মহানুভবতায় ঘরে বসে চিকিৎসা গ্রহণের সুযোগ পেয়েছেন। আরেকজন রাজনীতি করবেন না বলে মুচলেকা দিয়ে কাপুরুষের মতো বিদেশে পালিয়েছেন। তিনি ১০ ট্রাক অস্ত্র ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের প্রতি ইঙ্গিত করে ওবায়দুল কাদের বলেন, নিরাপদ দূরত্বে থেকে নিজে বিলাসী জীবন যাপন করছেন। আর নেতা-কর্মীদের চাঙা করতে দূর থেকে শব্দবোমা ছুড়ছেন। স্বপ্ন দেখছেন ক্ষমতার ময়ূর সিংহাসনের।

দেশের জনগণ আর পেছনে ফিরে যেতে চায় না বলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। বিবৃতিতে তিনি আরও বলেন, দেশে বর্তমানে গণতন্ত্রের কোনো সংকট নেই, সংকট বিএনপির মনস্তত্ত্বে।

বিএনপি সব সময় তাদের বক্তব্যে কৃত্রিম সংকটের গন্ধ পায়। তারা স্বাধীনতা গেল বলে হাহুতাশের রাজনীতি করে। বিএনপিকে এই সংকট থেকে উত্তরণে অপরাজনীতির কৌশল পরিহার করতে হবে।

বিবৃতিতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ধারণ করে বিএনপি সঠিক পথে ফিরে এলেই তা হবে দেশের রাজনীতির জন্য সহায়ক।