গত বুধবার জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ দলের জাতীয় সম্মেলন আহ্বান করেন এবং নিজেকে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক করে আট সদস্যের একটি কমিটিরও ঘোষণা দেন। এর পরদিন বৃহস্পতিবার রওশন এরশাদকে সরিয়ে দলের চেয়ারম্যান জি এম কাদেরকে জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের নেতা মনোনীত করেন জাপার সংসদ সদস্যরা। গতকাল শনিবার জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সভায় রওশন এরশাদকে সরিয়ে জি এম কাদেরকে সংসদে বিরোধী দলের নেতা করতে সংসদীয় দলের নেওয়া সিদ্ধান্ত সমর্থন করেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্যরা।

রওশন এরশাদ অসুস্থতার কারণে চিকিৎসার জন্য দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে আছেন।

গতকালের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের সঙ্গে কেউ হাত মেলালে তিনি যে পর্যায়ের নেতাই হোন, তাঁকে দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বহিষ্কার করা হবে।

আজ মুজিবুল হক আবার বলেন, যারা জাতীয় পার্টির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করতে চায়, তারা বোকার স্বর্গে বাস করছে। জাতীয় পার্টির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে কেউ সফল হবে না। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীরা প্রয়োজনে জীবন দিয়ে পার্টির বিরুদ্ধে সব ষড়যন্ত্র নসাৎ করে দেবেন।

মুজিবুল হক বলেন, ‘আগামী জাতীয় নির্বাচন কারও জন্যই সহজ হবে না। যেনতেন নির্বাচন করে কেউ আর পার পারে না। আমরা ৩০০ আসনেই নির্বাচন করতে প্রস্তুতি নিচ্ছি। ত্রিমুখী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে সবাইকে।’

জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ক্ষমতার দ্বন্দ্বে সহিংসতা শুরু করেছে। দেশের মানুষ সহিংস রাজনীতি পছন্দ করে না। এই সুযোগে জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীরা সাধারণ মানুষের কাছে গিয়ে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের উন্নয়ন ও সুশাসনের দাওয়াত পৌঁছে দেবে। তিনি বলেন, আগামী নির্বাচন অনেকের জন্যই অস্তিত্বের প্রশ্ন হয়ে দেখা দেবে। যারা পরাজিত হবে, তারা ইতিহাস থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতে পারে। তাই তৃণমূল পর্যায়ে দলকে আরও শক্তিশালী করতে নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান মো. মুজিবুল হক।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, এস এম মান্নান, মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, সুনীল শুভরায়, মীর আবদুস সবুর প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন