১৯৯০ সালের পর থেকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ক্ষমতায় গিয়ে দুর্নীতি করছে বলে অভিযোগ করেন নব্বইয়ের গণ–অভ্যুত্থানে ক্ষমতা হারানো সামরিক শাসক এইচ এম এরশাদের ছোট ভাই জি এম কাদের। তিনি বলেন, ক্ষমতা হারালে প্রতিপক্ষ দুর্নীতির মামলা দেয়। পরবর্তী সময়ে ক্ষমতায় গিয়ে সেই মামলা তুলে ফেলেন। ওয়ান–ইলেভেনের সময় আওয়ামী লীগ নেতাদের নামে দুর্নীতির যে মামলাগুলো হয়েছিল, ক্ষমতায় এসে তারা সেই মামলাগুলো তুলে ফেলেছে। কিন্তু বিএনপি ক্ষমতায় যেতে না পেরে তাদের নামের মামলাগুলো তুলতে পারেনি।

দুর্নীতি দেশের রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করেছে বলে অভিযোগ করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, এখন দেশে এমন কোনো সেক্টর নেই, যেখানে দুর্নীতি নেই।

অনুষ্ঠানে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, দেশে ইতিহাস বিকৃতি চলছে। যারা মুক্তিযুদ্ধ করেনি, বঙ্গবন্ধুকে দেখেনি, তারাই ইচ্ছেমতো এবং মনগড়া তথ্য দিয়ে ইতিহাস লিখছে। বর্তমান বাস্তবতায় ‘ছোটদের পল্লীবন্ধু’ বইটি শুধু কোমলমতি শিশু নয়, বড়দের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। এই বই পড়ে পল্লিবন্ধুর ঐতিহাসিক জীবনের কিছু ছবি দেখতে পাবে সবাই।

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা বলেন, পল্লিবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের উন্নয়ন এখনো দেশের মানুষ মনে রেখেছে। দেশের মানুষ আবারো ‘পল্লিবন্ধুর স্বর্ণযুগে’ ফিরে যেতে চায়। তিনি বলেন, ‘পল্লিবন্ধুর লাঙ্গল নিয়ে আমরা সাধারণ মানুষের কাছে যাব। আমরা সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করব।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় পার্টির রিচার্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট উইংয়ের আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম। ‘ছোটদের পল্লীবন্ধু’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ও জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির আহ্বায়ক শেরিফা কাদের।

জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য শাহীনারা সুলতানা রীমার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে দলের কো-চেয়ারম্যান এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহিদুর রহমান, ফখরুল ইমাম, সুনীল শুভ রায় প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন