নির্বাচন কমিশনের সংলাপে প্রতিটি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল অংশ নেবে, এমন প্রত্যাশা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা এই নির্বাচনকে একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন হিসেবে দেখতে চাই। নিবন্ধিত সবার অংশগ্রহণে অবাধ, নিরপেক্ষ এবং বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’ তিনি বলেন, ভবিষ্যতে নির্বাচনব্যবস্থাকে আরও আধুনিক ও মানসম্মত করা হবে। বর্তমান ব্যবস্থাও একটি সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের অনুকূলে।

বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে না—বিরোধী রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে বারবার এমন আশঙ্কা জানানো প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচন হবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে। নির্বাচন কমিশন যদি নিরপেক্ষ হয়, তাহলে নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে, এখানে সরকারের কোনো সংশ্লিষ্টতা থাকবে না। সরকার শুধু সহযোগিতা করবে কমিশনকে। তিনি বলেন, নির্বাচনসংক্রান্ত সরকারের কোনো সংস্থা বা দপ্তর নির্বাচন চলাকালে সরকারের নির্দেশে চলবে না, চলবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে।

ওবায়দুল কাদের আশা প্রকাশ করেন, নির্বাচন কমিশন নির্বাচনসংক্রান্ত যে রাজনৈতিক সংলাপের আহ্বান জানিয়েছে, সেখানে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলো অংশ নিয়ে তাদের দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবে।

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বিআরটিসির কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় যোগ দেন। এ সময় সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরি ও বিআরটিসির চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলামসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, বিআরটিসি লাভের ধারায় ফিরে এসেছে। এ ধারাকে অব্যাহত রাখতে হবে। বিআরটিসি যেন সরকারের বোঝা না হয়, সেদিকেও নজর দিতে হবে।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন