সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন কর্মসূচিতে বিএনপি নেতা–কর্মীদের লাঠি ও বাঁশের ডগায় জাতীয় পতাকা বেঁধে নিয়ে যেতে দেখা গেছে। এর মধ্যে রাজধানীর হাজারীবাগ এলাকায় সমাবেশ শুরুর আগে আওয়ামী লীগ কর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষে ওই সব লাঠি ব্যবহার করেছেন তাঁরা।

এ বিষয়টি উদ্বেগের বলে মন্তব্য করেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, ‘অ্যালার্মিং হবে তখন, যেটা আমাদের দলের পক্ষ থেকে সেক্রেটারি জেনারেল বলেছেন, মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, আপনারা মিছিল–মিটিং করেন সবই ঠিক আছে, জাতীয় পতাকা নিয়ে আসেন এটা খুব সুন্দর। জাতীয় পতাকা যে লাঠিতে বেঁধে নিয়ে আসেন, সেটা যদি স্বাভাবিক–নিয়মমতো হয় ওয়েলকাম। কিন্তু যদি গজারির খোঁটার মধ্যে নিয়ে আসেন বা বড় মোটা বাঁশের মধ্যে নিয়ে আসেন, সেটা মনে হবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।’

সরকারের পক্ষ থেকে বিএনপিকে আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নিত হয়, এমন কিছু না করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটির সভাপতি মোজাম্মেল হক বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরে অপরাধ বেড়ে যাওয়ায় সরকার উদ্বিগ্ন। সেখানে আইনশৃঙ্খলা ঠিক রাখতে পদক্ষেপ বাড়ানো হবে।

সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়েও সরকার সজাগ রয়েছে বলে জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের মধ্যে কিছু উচ্ছৃঙ্খল লোক আছে। বিশেষ করে মাদকের সঙ্গে জড়িত। তাদের ওপর নজরদারি আরও কঠোর এবং রাতে টহল বাড়ানো হবে, যাতে মাদক ভেতরে আসতে না পারে, সেই জায়গায় নজরদারি বাড়ানো হবে।

অনলাইনে যাঁরা অপপ্রচার চালাচ্ছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে সরকার চিন্তা করছে বলে জানান মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, ‘সাইবার ক্রাইম নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না অপরাধীরা বাইরে থাকার জন্য। তাদের কীভাবে নিয়ন্ত্রণে আনা যায়, সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্ত্রী বলেন, টাকা পাচারকারীদের বিরুদ্ধে তদন্ত হচ্ছে। অভিযোগ প্রমাণের সাপেক্ষে আইনের আওতায় আনা হবে। তিনজন পুলিশ সুপারকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো নিয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কোনো বার্তার প্রশ্ন নেই। এটা হলো রুটিন ওয়ার্ক। নিয়ম আছে চাকরির বয়স ২৫ বছর হলে অবসরে পাঠানো যাবে।’