তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়। গীতিকার আলম খান ও অভিনত্রী শর্মিলী আহমেদের মৃত্যুতে এই স্মরণসভার আয়োজন করা হয়।

বিদ্যুতের লোডশেডিং বিষয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা ও ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সমগ্র পৃথিবী আজ সংকটের মুখে। যুক্তরাষ্ট্রেও সাশ্রয়ীভাবে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি ব্যবহারের জন্য সবাইকে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। ইউরোপের অনেক দেশেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর কখনো বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়নি। সেখানের কোথাও কোথাও লোডশেডিং হয়েছে।
গত ৪০ বছরের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে ৮.৬%, যুক্তরাজ্যে ৯.১%, তুরস্কে ৭৩.৫%, শ্রীলংকায় ৩৯.১%, পাকিস্তানে ১৩.৮% ও ভারতে ৭ শতাংশের ওপর মুদ্রাস্ফীতি দেখা দিয়েছে বলে উল্লেখ ধরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ তো বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন কোনো দ্বীপ নয়। সমগ্র পৃথিবী সংকটে থাকলে বাংলাদেশে তার কিছুটা আঁচড় পড়বে সেটা স্বাভাবিক। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনেক দেশের চেয়ে পরিস্থিতি অনেক ভালো সামাল দিচ্ছেন। সেজন্যই আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত অর্থনীতিবিদদের গবেষণায় ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম নেই।

বিএফডিসির জহির রায়হান কালার ল্যাব মিলনায়তনে প্রয়াত সংগীত পরিচালক, গীতিকার ও সুরকার আলম খান এবং অভিনয়শিল্পী শর্মিলী আহমেদের স্মরণসভায় বক্তব্য দেন তথ্যমন্ত্রী। দেশের চলচ্চিত্র অঙ্গনে তাদের অবদানের কথা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। এ সময় চলচ্চিত্র অঙ্গনের প্রয়াত গুণীজনদের স্মৃতি সংরক্ষণের জন্য বিএফডিসিকে পরামর্শ দেন।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি ও চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি আয়োজিত স্মরণসভা পরিচালনা করেন পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান। এ সময় বক্তব্য দেন শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন, অভিনেতা আলমগীর, সংগীত পরিচালক গাজী মাজহারুল আনোয়ার, বিএফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুজহাত ইয়াসমিন, প্রয়াত শর্মিলী আহমেদের ছোট বোন ওয়াহিদা মল্লিক জলি প্রমুখ।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন