জেলা বিএনপির সদস্যসচিব স্নেহাংশু সরকার বলেন, রাতে দলীয় কার্যালয়ে তাঁদের নেতা-কর্মীরা ৫ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় বরিশাল বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করতে আলোচনায় বসেছিলেন। তখন জেলা আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা মোটরসাইকেলে এসে দলীয় কার্যালয়ের সামনে মহড়া দেন এবং একপর্যায়ে কার্যালয়ে হামলা চালান। এতে বিএনপির নেতা-কর্মীরা সরে যান। পরে হামলাকারীরা তাঁদের কার্যালয়ের চেয়ার ও আসবাব ভাঙচুর করে রাস্তায় ছুড়ে ফেলে দেন। এ সময় বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেলও ভাঙচুর করা হয়েছে।

স্নেহাংশু সরকার আরও বলেন, হামলাকারীরা এর আগে শহরের স্বনির্ভর সড়ক এলাকায় তাঁর ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে হামলা চালান এবং দুটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেন।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মান্নান বলেন, আসলে বিএনপির দলীয় বিরোধ দীর্ঘদিন ধরে। নিজেদের মধ্যেই হামলার ঘটনা ঘটিয়ে আওয়ামী লীগের ওপর দোষ চাপাচ্ছে।

এ ঘটনার পর শহরে পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। পটুয়াখালী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে তাঁরা ঘটনাস্থলে গিয়েছেন। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।