স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও গণতন্ত্রের জন্য জীবন দিতে হচ্ছে উল্লেখ করে নুরুল হক বলেন, সেদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছাত্রদলের এক নেতাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এই পুলিশের বিরুদ্ধে আদালত ব্যবস্থা নেবে কি না, সেই প্রশ্ন তোলেন তিনি।

নুরুল হকের অভিযোগ, সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো নষ্ট করে ফেলেছে, ধ্বংস করে ফেলেছে। দলকানা ও দলদাসদের বসিয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোর চরিত্র নষ্ট করে ফেলেছে।

বৈশ্বিক পরিস্থিতির কারণে পৃথিবীর অনেক দেশই সংকটে পড়েছে। তবে সরকারের অপরিকল্পনা ও লুটপাটের কারণে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী বলে মন্তব্য করেন নুরুল হক। সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, তারা ব্যাংক খাত থেকে লুটপাট করেছে। শেয়ারবাজার লুটপাট করেছে। এমন কোনো প্রতিষ্ঠান নেই যেখানে তারা লুটপাট করেনি। কিছুদিন আগে আদালত বললেন, অর্থ পাচারকারীকে শুটডাউন (গুলি করে মারা) করা উচিত। শুটডাউনের কথা বলা হয়েছে প্রকৃত অপরাধীদের জনসম্মুখে না আনার জন্য।

সভায় গণ অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক রেজা কিবরিয়া অভিযোগ করে বলেন, দেশের অর্থনীতি থেকে যতটা রক্ত নেওয়া যায়, এই সরকার এর চেয়ে বেশি নিয়ে গেছে। এ জন্য তারা বিপদে পড়ে গেছে। তিনি বলেন, ‘এই সরকারের কথায়, আমরা নাকি সিঙ্গাপুর হয়ে গেছি, কানাডা হয়ে গেছি। যত দূর জানি, কানাডা ও সিঙ্গাপুরে কেউ বলে না যে দুর্ভিক্ষ আসছে।’

রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। তারপরেও আমাদের দুর্ভিক্ষ কেন হবে?’

সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সংবিধান সংরক্ষণ কমিটির সভাপতি শাহ আহমেদ বাদলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মামুন মাহবুবের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী মোহসীন রশীদ, আইনজীবী অধিকার পরিষদের সমন্বয়ক জীসান মোহসীন প্রমুখ।