আজ সে বিষয়ে প্রশ্ন করলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এখন পর্যন্ত সংবিধান সংশোধনের কোনো পরিকল্পনা সরকারের নেই। নির্ধারিত সময়েই রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হবে। যেহেতু তিনি দুই টার্ম থেকেছেন, সংবিধান অনুসারে তিনি আর থাকতে পারবেন না। সেহেতু নতুন একজন নির্বাচিত হবেন।’

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস এখন কারাগারে। গতকাল তাঁদের দুজনেরই জামিন হয়। এই দুই নেতাসহ বিভিন্ন নেতার জামিনের প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘আদালতের কাজে আইন মন্ত্রণালয় তো নয়ই, কোনো মন্ত্রণালয়ও হস্তক্ষেপ করছে না। আদালত যদি মনে করেন, তাহলে জামিন দেবেন।

আদালত যদি মনে করেন দেওয়া যাবে না, দেবেন না।’ বিএনপির নেতাদের জামিন প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এটা অহরহ হয়ে থাকে যে নিম্ন আদালত জামিন দেননি, উচ্চ আদালত জামিন দিয়েছেন।

আবার এমনও হয়, নিম্ন আদালত জামিন দিয়েছেন, উচ্চ আদালত তা আটকে দিয়েছেন। এটা নতুন কিছু না বাংলাদেশে। এটা নিয়ে যাঁরা প্রশ্ন তুলেছেন, তাঁরা হয়তো জাতীয় পার্টি-বিএনপির আমল দেখেননি, বা দেখলেও সেটা তাঁরা বলতে চাচ্ছেন না।’