মির্জা ফখরুলের উদ্দেশে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী মূল্যস্ফীতির দিকে তাঁকে একটু তাকাতে বলব। ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ মূল্যস্ফীতি হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে—সেটি ৮ দশমিক ৬ শতাংশ। ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ যুক্তরাজ্যে—৯ দশমিক ১ শতাংশ, জার্মানিতে ৭ দশমিক ৯ শতাংশ, রাশিয়ায় ১৭ দশমিক ১ শতাংশ, তুরস্কে ৭৩ দশমিক ৫ শতাংশ এবং নেদারল্যান্ডসে ৯ দশমিক ৬ শতাংশ।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার শ্রীলঙ্কায় ৩৯ দশমিক শতাংশ, পাকিস্তানে ১৩ দশমিক ৮ শতাংশ, ভারতেও ৭ শতাংশের ওপরে। আমাদের দেশে মে মাস পর্যন্ত সেটি ৬ শতাংশের একটু ওপরে ছিল, সাম্প্রতিক সময়ে বেড়ে ৭ শতাংশ হয়েছে, যেটি আজ সব পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। দেশে এখনো এই কম মূল্যস্ফীতি প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার কারণেই সম্ভবপর হয়েছে। এবং বিশ্ববাজারে ধীরে ধীরে ভোগ্যপণ্যের দাম কমছে, আমরা আশা করছি দু-এক মাসের মধ্যে এর সুফল পাব।’

দেশে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে গত অর্থবছরে ৫৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হয়েছে এবং বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা যথার্থ উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, প্রথমত করোনা, দ্বিতীয়ত ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী মন্দা চলছে। ইউরোপের ফ্রান্স, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, বেলজিয়ামসহ সমগ্র পৃথিবীতে সাশ্রয়ীভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রে কদিন আগে সব নাগরিকের কাছে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার জন্য মোবাইলে বার্তা পাঠানো হয়েছে উল্লেখ করে বার্তাটি পড়ে শোনান তিনি।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন