জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আজ শনিবার বিকেলে এক বিক্ষোভ সমাবেশে এসব কথা বলেন জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের নেতারা। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সম্পাদক ফয়জুল হাকিম বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমতে শুরু করেছে। কিন্তু সরকার জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি করে জনগণের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়েছে। এই মূল্যবৃদ্ধির টাকা লুটেরা ব্যবসায়ী ও রাজনীতিকদের পকেটে চলে যাবে।

এ সময় বক্তারা বলেন, সরকার এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনকে পাশ কাটিয়ে একতরফা মূল্যবৃদ্ধির ঘোষণা দিয়েছে। বিগত বছরগুলোতে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম যখন কম ছিল, সে সময় সরকার কয়েক বছরে ৪৭ হাজার কোটি টাকা মুনাফা করেছিল। এই লাভের অংশ দিয়েই সমন্বয় করা যেত। কিন্তু সরকার সে পথে হাঁটেনি। জ্বালানি তেলের এই লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধির প্রতিক্রিয়া দেশের অর্থনীতিতে এক ভয়াবহ বিরূপ প্রভাব ফেলবে।

সমাবেশে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ লেখক শিবিরের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইকবাল, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি মিতু সরকার,পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক অমল ত্রিপুরা। সমাবেশ পরিচালনা করেন জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সংগঠক হেমন্ত দাস।

ভোলায় বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে বিএনপির মিছিলে পুলিশের গুলিতে দুজন নিহত হওয়ার ঘটনার নিন্দা জানান সমাবেশে অংশ নেওয়া বক্তারা।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন