নতুন চাঁদ দেখলে বা চন্দ্রোদয়ের সংবাদ নিশ্চিত হলে দোয়া পড়া সুন্নত। মহান প্রভুর দরবারে এই আবেদন: ‘আল্লাহু আকবার! আল্লাহুম্মা আহিল্লাহু আলাইনা বিল আমনি ওয়াল ইমান, ওয়াছ-ছালামাতি ওয়াল-ইসলাম; ওয়াত-তাওফিকি লিমা তুহিব্বু ওয়া তারদা। রব্বি ওয়া রব্বুকাল্লাহ; হিলালু রুশদিন ওয়া খায়র।’ অর্থাৎ ‘আল্লাহ মহান! হে আল্লাহ! আপনি এই মাসকে আমাদের জন্য নিরাপত্তা, ইমান, প্রশান্তি ও ইসলাম–সহযোগে আনয়ন করুন এবং আপনি যা ভালোবাসেন এবং যাতে আপনি সন্তুষ্ট হন, সে আমলের সামর্থ্য দান করুন। আমার ও তোমার প্রভু আল্লাহ। এই মাস সুপথ ও কল্যাণের (তিরমিজি: ৩৪৫১)।’

চাঁদরাত পয়লা শাওয়াল তথা রমজানের ঈদের রাতের আমল হলো মাগরিব, এশা ও ফজর নামাজ যথাসময়ে যথাযথভাবে আদায় করা। রাতের ইবাদতের জন্য বিশেষভাবে পবিত্রতা অর্জন করা; সম্ভব হলে গোসল করা। ইবাদতের উপযোগী ভালো কাপড় পরিধান করা। সুগন্ধি ব্যবহার করা। মাগরিবের পর আউওয়াবিন নামাজ পড়া এবং শেষ রাতে তাহাজ্জত নামাজ পড়া। রাত জেগে নফল ইবাদত করা। নফল নামাজ পড়া। তাহ্যিয়াতুল অজু, দুখুলুল মাসজিদ, তাওবার নামাজ, সালাতুল হাজাত, সালাতুত তাসবিহ্‌, সালাতুশ শোকর ইত্যাদি পড়া। কোরআন শরিফ তিলাওয়াত করা, সুরা ইয়াসিন, সুরা রহমান, সুরা ওয়াকিআ, সুরা মুলক, সুরা মুজ্জাম্মিল ও সুরা মুদ্দাচ্ছির এবং সুরা ফাতহ ও সুরা নাবা ইত্যাদি পাঠ করা। দরুদ শরিফ পাঠ করা, ইস্তিগফার করা, তাসবিহ্‌ তাহলিল, জিকির আজকার ইত্যাদিতে মশগুল থাকা। চাঁদরাত ইবাদতে নিমগ্ন না থেকে, ঘোরাঘুরি ও অপ্রয়োজনীয় কাজে কাটিয়ে দেওয়া সত্যিই অনুতাপের বিষয়।

প্রিয় নবীজি (সা.) বলেন, ‘যখন ঈদের দিন তথা ঈদুল ফিতরের দিন আসে, তখন আল্লাহ বান্দাদের বিষয়ে ফেরেশতাদের সঙ্গে গর্ব করেন। বলেন, “হে আমার ফেরেশতারা! যে শ্রমিক তার কর্ম পূর্ণ করেছে, তার বিনিময় কী?” তারা বলবে, “তাদের বিনিময় হলো তাদের পারিশ্রমিক পরিপূর্ণরূপে প্রদান করা।” বলবেন, “হে আমার ফেরেশতারা! আমার বান্দা–বান্দীরা তাদের দায়িত্ব–কর্তব্য পালন করেছে, তারপর দোয়ার উদ্দেশ্যে বের হয়েছে। আমার সম্মান, মহত্ত্ব, করুণা, মাহাত্ম্য ও উচ্চ মর্যাদার শপথ! আমি তাদের প্রার্থনা গ্রহণ করব।” এরপর আল্লাহ বলবেন, “তোমরা ফিরে যাও, আমি তোমাদের ক্ষমা করে দিলাম এবং তোমাদের মন্দ আমলগুলো নেকিতে পরিবর্তন করে দিলাম।” নবীজি (সা.) বলেন, তারা ক্ষমাপ্রাপ্ত হয়ে ফিরে যাবে (খুতবাতুল আহকাম, পৃষ্ঠা: ১৬২-১৬৬)।’

ঈদের নামাজ পুরুষদের জন্য ওয়াজিব। ঈদের নামাজের সময় হলো সূর্যোদয়ের পর থেকে মধ্য দিবসের পূর্ব পর্যন্ত। ঈদের নামাজের আগে বা পরে ঈদগাহে বা বাসাবাড়িতে কোথাও কোনো নফল নামাজ পড়া যায় না। ঈদের নামাজের জন্য আজান ও ইকামাত দিতে হয় না। সকালবেলায় দিনের প্রথম প্রহরেই ঈদের নামাজ পড়া হয়। রমজানের ঈদের নামাজের আগে এবং কোরবানি ঈদের নামাজের পর প্রাতরাশ গ্রহণ করা সুন্নত (আল ফিকহুল ইসলামি)।

দুই রাকাত ঈদের ওয়াজিব নামাজ ছয়টি অতিরিক্ত ওয়াজিব তাকবিরসহ আদায় করতে হয়। ঈদের নামাজের অতিরিক্ত ওয়াজিব তাকবিরে ভুল হলে অর্থাৎ তাকবির কম বা বেশি হলে অথবা বাদ পড়লে সাহু সিজদা প্রয়োজন নেই। তিন ধরনের নামাজে সাহু সিজদা প্রযোজ্য নয়: ঈদের নামাজ, জুমার নামাজ এবং বড় জামাআত। (দুররুল মুখতার, রদ্দুল মুহতার, ফাতাওয়ায়ে শামি)।

মুফতি মাওলানা শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী

যুগ্ম মহাসচিব, বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতি; সহকারী অধ্যাপক, আহ্ছানিয়া ইনস্টিটিউট অব সুফিজম

[email protected]

ইসলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন