১৯৯৮ সালে অভিষিক্ত সাইমন্ডস ১১ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে ২৬টি টেস্ট, ১৯৮টি ওয়ানডে ও ১৪টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে ৬ হাজার ৮৮৭ রান ও ১৬৫টি উইকেট এই অলরাউন্ডারের। পুলিশ ও উদ্ধারকারী দল বলেছে, দুর্ঘটনার পর গাড়িটি রাস্তা থেকে গড়িয়ে পড়ে যায়। গুরুতর আহত হয়ে অ্যান্ড্রু সাইমন্ডস মারা যান।

পুলিশ এবং ক্রিকেট সংশ্লিষ্ট বেশ কিছু সূত্র নিশ্চিত করেছেন, দুর্ঘটনায় মৃত ব্যক্তি সাবেক আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার অ্যান্ড্রু সাইমন্ডস। এ ব্যাপারে পেট্রল ইন্সপেক্টর গ্যাভিন ওটস বলেছেন, দুর্ঘটনার কারণ এখনো জানা যায়নি। তবে এখন পর্যন্ত যা দেখা গেছে তাতে মদ্যপানের কোনো নমুনা দেখা যায়নি।

ওটস বলেছেন, ‘আশপাশের মানুষ দুর্ঘটনার শব্দ শুনেছেন। তাঁরাই প্রথমে দুর্ঘটনাস্থলে এসে জরুরি সেবার মানুষদের খবর দিয়েছেন।’ ইন্সপেক্টর দাবি করেন, সাইমন্ডস গাড়ি থেকে বের হয়েছিলেন বা ছিটকে পড়েছিলেন দুর্ঘটনায়। প্যারামেডিক তাঁকে গাড়ির বাইরেই শুশ্রূষা দেওয়ার চেষ্টা করেছে।

ওটস জানিয়েছেন, পুলিশ প্রথমেই বুঝতে পারেননি, আহত ব্যক্তি সাইমন্ডস। মৃত্যুর পর তাঁর পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পেরেছে পুলিশ, ‘পুলিশ যখন পৌঁছায়, প্যারামেডিক তার আগেই শুশ্রূষা দেওয়ার চেষ্টা করছিল, একটু পরই মারা যান তিনি।’

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার চেয়ারম্যান লকল্যান হেন্ডারসন এক বিবৃতিতে বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট আরেক প্রতিভাবানকে হারাল। সাবেক অধিনায়ক মার্ক টেলর বলেছেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটের জন্য আরেকটি মর্মান্তিক দিন।’ অ্যাডাম গিলক্রিস্ট টুইট করেছেন, ‘এটা সত্যিই ব্যথা দিচ্ছে। শান্তিতে থাক রয়।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন