বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ব্রিসবেনে অ্যাশেজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৭৪ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে কোনো রান না করে অপরাজিত ছিলেন লাবুশেন। সিরিজ শুরুর আগে চার নম্বরে থাকা লাবুশেন প্রথম টেস্টের পরই উঠে এসেছিলেন দুইয়ে। সে ফর্মটা অ্যাডিলেডের দ্বিতীয় টেস্টেও টেনে এনেছেন তিনি। প্রথম ইনিংসে শতকের পর দ্বিতীয় ইনিংসে অর্ধশতক করে ম্যান অব দ্য ম্যাচও হয়েছেন। ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ ৯১২ রেটিং পয়েন্ট এখন তাঁর। র‍্যাঙ্কিংয়ে দুইয়ে থাকা রুট প্রথম টেস্টে করেছিলেন ০ ও ৮৯। অ্যাডিলেডে প্রথম ইনিংসে অর্ধশতক করলেও লাবুশেনকে আটকানোর জন্য যথেষ্ট হয়নি।

default-image

অ্যাশেজে ২-০-তে এগিয়ে থাকা অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সের আরও ছাপ আছে র‍্যাঙ্কিংয়ে। অ্যাডিলেডে ম্যাচে ৮০ রান দিয়ে ৬ উইকেট নেওয়া ফাস্ট বোলার মিচেল স্টার্ক উঠে এসেছেন শীর্ষ দশে। নিউজিল্যান্ডের কাইল জেমিসনকে টপকে নয় নম্বরে এখন তিনি। বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে আগে থেকেই এক নম্বরে আছেন অ্যাডিলেড টেস্টে না খেলা প্যাট কামিন্স। ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ দশে জায়গা ধরে রেখেছেন স্টিভ স্মিথ (৩), ডেভিড ওয়ার্নার (৬) ও ট্রাভিস হেড (১০)।

ব্যাটসম্যানদের শীর্ষ স্থান হারালেও অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ে ক্যারিয়ারের সেরা অবস্থানে এসেছেন রুট। দ্বিতীয় টেস্টে ৮৬ রানের সঙ্গে ৩ উইকেট নেওয়ার পর দুই ধাপ এগিয়ে দশ নম্বরে উঠেছেন তিনি। বোলিংয়ে দারুণ পারফরম্যান্সের সঙ্গে ব্যাটিংয়ে ভূমিকা রাখা স্টার্ক উঠেছেন ছয় নম্বরে, এক ধাপ উন্নতি হয়েছে তাঁর।

default-image

অন্যদিকে বাবর এখন যুগ্মভাবে ডেভিড ম্যালানের সঙ্গে টি-টোয়েন্টিতে এক নম্বর ব্যাটসম্যান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম দুই ম্যাচে ০ ও ৭ রান করার পর তিনে নেমে গিয়েছিলেন পাকিস্তান অধিনায়ক। তবে শেষ ম্যাচে ৭৯ রানের ইনিংসের পর এখন ম্যালানের সমান ৮০৫ রেটিং পয়েন্ট তাঁর।

আর স্বপ্নের মতো এক বছর কাটানো বাবরের সতীর্থ মোহাম্মদ রিজওয়ান অর্জন করেছেন ক্যারিয়ারের সেরা ৭৯৮ রেটিং পয়েন্ট। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ম্যাচে ৪৫ বলে ৮৭ রানের দুর্দান্ত ইনিংসে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছিলেন রিজওয়ান, এরপর র‍্যাঙ্কিংয়ে এক ধাপ এগিয়ে ম্যালান ও বাবরের ঠিক পরের অবস্থানেই আছেন এ উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন