বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বেশ দীর্ঘদিন ধরেই ক্রিকেট সংগঠক হিসেবে কাজ করা জালাল নতুন দায়িত্বের চ্যালেঞ্জ নিয়ে বলেছেন, ‘চ্যালেঞ্জ এককথায় বলতে চাই না। অবশ্যই বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নতি। পারফরম্যান্সেই নজর থাকা উচিত। এটা ভালো করতে যা করার দরকার, সেটা চেষ্টা করতে হবে। এটাই ক্রিকেট—একটা বছর খারাপ যেতেই পারে। আমি এটা বিশ্বাস করি, এখন হয়তো একটু খারাপ সময় যাচ্ছে। ইনশা আল্লাহ আমরা “রাইট ট্র্যাকে” চলে আসব। সেখানে ফেরাটাই প্রধান চ্যালেঞ্জ।’

কমিটি নতুন হলেও দায়িত্বটাকে সেভাবে ‘অপরিচিত’ মনে করছেন না সাবেক এই ক্রিকেটার, ‘নতুন কিছু না। তবে বড় দায়িত্ব। ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের অনেক কার্যক্রম আছে। ক্রিকেট বোর্ডের “হার্ট” বলা যায় এটিকে। আকরাম সুন্দরভাবে চালিয়ে এসেছে। হয়তো পারফরম্যান্স ভালো হলে সবারই সুনাম হয়। দলের, বোর্ডের, কমিটির। আশা করি, সবাই মিলে ভালো সময় ফিরিয়ে আনতে পারব।’

default-image

এর আগে দায়িত্ব পাওয়ার পরও ‘এ’ দলের কার্যক্রম নিয়ে বলেছিলেন জালাল। যদিও ‘বাংলাদেশ টাইগার্স’ নামে নতুন কার্যক্রমের কথা বিসিবি বলে আসছে বেশ কিছুদিন ধরেই। নাজমুল হাসানের নতুন বোর্ডের প্রথম সভার পর ‘বাংলাদেশ টাইগার্স’ নামে একটা কমিটির দায়িত্বও দেওয়া হয়েছে সিসিডিএমের (ক্রিকেট কমিটি ফর ঢাকা মেট্রোপলিস) সাবেক চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদকে।

আবারও ‘এ’ দলের কার্যক্রম নতুন করে শুরু করার কথা বলেছেন জালাল, “‘এ” দলের যে কার্যক্রম একটু থমকে আছে, কারণ, করোনা মহামারি। আমি দেখেছি যে আগে ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগ অনেক চেষ্টা করেছে, অনেক দেশের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। হয়তো তারা সূচি দিয়েছিল কিন্তু পরে আবার তারা বাতিলও করে দিচ্ছিল।’

default-image

সামনে সাধারণত যেসব দেশে এখন জাতীয় দল সফরের সুযোগ পায় না, সেখানে ‘এ’ দলের সফরের ব্যবস্থা করা হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন এ বোর্ড পরিচালক। তবে সেটা বাংলাদেশ টাইগার্সের সঙ্গে সমন্বয় করে করা হবে বলেই জানিয়েছেন তিনি, ‘বাংলাদেশ টাইগার্স আছে, তাদের সঙ্গে সমন্বয় করেও যদি কোনো সফর করতে পারি, এখানে “এ” দলের খেলোয়াড় থাকতে পারে, একাডেমির খেলোয়াড় থাকতে পারে, হাই পারফরম্যান্সের কোনো খেলোয়াড় থাকতে পারে—আমার কোনো আপত্তি নাই। যে নামেই হোক খেলোয়াড় তো একই।’

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন