বিজ্ঞাপন

১৮ জুন সাউদাম্পটনে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ভারত। এরপর ১৩ জুলাই থেকে শ্রীলঙ্কার মাটিতে ওয়ানডে ও টি–টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে ভারত। ২৭ জুলাই শ্রীলঙ্কা সফর শেষে বেশি দিন বিশ্রামের সুযোগ পাচ্ছে না ভারতীয় দল।

৪ আগস্ট থেকে ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ইংল্যান্ডের মাটিতে পাঁচ টেস্টে মুখোমুখি হবে বিরাট কোহলির দল। এরপর আবার টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপের চ্যালেঞ্জ সামলাতে হবে ভারতকে। অতএব আইপিএলের বাকি ম্যাচগুলোর সূচি বের করতে রীতিমতো ঘাম ঝরবে বিসিসিআইয়ের।

default-image

ইসিবির এক মুখপাত্র এ নিয়ে সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘বিসিসিআইয়ের সঙ্গে নিয়মিতই আমাদের নানা বিষয় নিয়ে কথা হয়। এখন যেমন কোভিড–১৯ চ্যালেঞ্জ সামলানো নিয়ে আমরা কথা বলছি। কিন্তু (টেস্ট সিরিজের) দিনক্ষণ পাল্টাতে কোনো আনুষ্ঠানিক অনুরোধ করা হয়নি। আগের সূচি অনুযায়ীই আমরা পরিকল্পনা করছি।’

এই টেস্ট সিরিজের দিনক্ষণ পাল্টানোর নেতিবাচক প্রভাবের সম্মুখীন হতে পারেন ইংলিশ সমর্থকেরা। এ ছাড়া ১০০ বলের টুর্নামেন্ট ‘হানড্রেড’–এর অভিষেক সংস্করণের শুরু হওয়ার সূচির সঙ্গে তা সংঘাতপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এর আগে জানিয়েছিল, বিসিসিআই সংশ্লিষ্ট কেউ অফিশিয়ালি নিশ্চিত করেননি বোর্ড ইসিবির সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলছে।

‘দ্য টাইমস’–এ লেখা কলামে বিষয়টি জানিয়েছিলেন, ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক মাইকেল আথারটন, ‘স্থগিত আইপিএলের জন্য সূচি বের করতে ভারতীয় বোর্ড ইংল্যান্ডে শেষ টেস্টের দিনক্ষণ পাল্টানো নিয়ে কথা বলছে। এ নিয়ে অনানুষ্ঠানিক কথা হচ্ছে দুই পক্ষের মধ্যে।’

default-image

ভারতের সংবাদমাধ্যম তখন অবশ্য জানিয়েছিল, ইংল্যান্ডে পাঁচ টেস্টের সিরিজ আগের সূচি থেকে এক সপ্তাহ এগিয়ে আনতে চায় বিসিসিআই।

আইপিএলে এর আগে আট ফ্র্যাঞ্চাইজির মধ্যে চারটিতেই খেলোয়াড় ও কোচিং স্টাফরা করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় ৪ মে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয় এই টুর্নামেন্ট। বেশ কিছু ক্রিকেটার নিজ থেকেই আইপিএল থেকে সরে যান। অস্ট্রেলিয়ান তিন ক্রিকেটার দেশে ফিরেছেন আইপিএল স্থগিত হওয়ার আগেই।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন