default-image

টেস্ট সিরিজ শেষ করে টি-টোয়েন্টি শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে নেমেছে ভারত ও ইংল্যান্ড। গতকাল ছিল এই দুই দলের মধ্যকার পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচ। আহমেদাবাদে সিরিজের প্রথম এ ম্যাচে ভারতকে হেসেখেলে হারিয়েছে ইংল্যান্ড। জফরা আর্চার, আদিল রশিদ, মার্ক উড ও ক্রিস জর্ডানের বোলিং নৈপুণ্যে ও জেসন রয়, জস বাটলার, ডেভিড মালান ও জনি বেয়ারস্টোর দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ২৭ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটে জিতেছে ইংলিশরা। আর তাতেই ভারতকে খোঁচা মেরে কথা বলার সাহস পেয়ে গেছেন মাইকেল ভন।

গোটা সিরিজ ধরেই এ ধারা চলছে। টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে যখন ইংল্যান্ড জিতল, ভনের কথায় নাকাল হয়েছিল ভারত শিবির। পরে দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়ে সিরিজ জেতার পাশাপাশি ভনের মতো হাজারো সংশয়বাদীর মুখও বন্ধ করেছেন কোহলিরা। টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে আবারও চেনা চিত্রনাট্য মেনে ভারতের পরাজয়, আবারও মুখ খুলেছেন ভন।

এবার পরিচিত একটা বিতর্ককেই আবারও উসকে দিয়েছেন সাবেক এই ইংলিশ অধিনায়ক। তাঁর চোখে, মুখোমুখি লড়াই হলে কোহলির ভারত দলকে হারিয়ে দিত আইপিএলে রোহিতের দল মুম্বাই ইন্ডিয়ানস।

বিজ্ঞাপন

এমনিতেই অধিনায়ক হিসেবে বিরাট কোহলি যতই সফল হন না কেন, শতভাগ মানুষের সমর্থন কখনোই আদায় করতে পারেননি। কারও চোখে রোহিত শর্মা, আবার কারও চোখে অজিঙ্কা রাহানে ভারতের জন্য অধিনায়ক হিসেবে বেশি যোগ্য। কোহলি যখনই ব্যর্থ হন, এ আলোচনা যেন আবারও আড়মোড়া ভেঙে জেগে ওঠে।

default-image

গত রাতেও সেটার ব্যতিক্রম হয়নি। ভারতকে নিজের দলের কাছে টি-টোয়েন্টিতে নাস্তানাবুদ হতে দেখে ভন ঘোষণা দিয়ে দিয়েছেন, আইপিএলের মুম্বাই ইন্ডিয়ানস ফ্র্যাঞ্চাইজিও ভালো ভারতের এই টি-টোয়েন্টি দল থেকে!

আর এখানেই লুকিয়ে আছে সূক্ষ্ম খোঁচাটা। মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের অধিনায়ক রোহিত শর্মা, ওদিকে ভারতের বিরাট কোহলি। আইপিএলে এবারও চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রোহিতের দল। টানা দ্বিতীয় ও সব মিলিয়ে পঞ্চমবারের মতো আইপিএল শিরোপা জিতেছে ফ্র্যাঞ্চাইজি দলটি। ওদিকে ভারত জাতীয় দলের তিন সংস্করণের অধিনায়ক কোহলির আইপিএল রেকর্ডটা বেশ ফিকে।

আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর অধিনায়ক হিসেবে এখনো শিরোপার মুখ দেখেননি ভারত অধিনায়ক। মুম্বাইয়ের অধিনায়ক হিসেবে রোহিত একের পর এক সাফল্য তুলে নেওয়ার কারণে কোহলি জাতীয় দলের হয়ে ব্যর্থ হলেই রব ওঠে, টি-টোয়েন্টিতে ভারতের নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হোক রোহিতের হাতে।

আর সে তর্কের আগুনেই যেন ঘি ঢেলেছেন ভন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে জানিয়ে দিয়েছেন, ‘ভারতের জাতীয় দলের চেয়ে টি-টোয়েন্টিতে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস ভালো দল!’

ম্যাচে কোহলি ব্যর্থ। পাঁচ বল খেলে রানের খাতা না খুলেই লেগ স্পিনার আদিল রশিদের বলে ক্রিস জর্ডানের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হয়েছেন। ওদিকে সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচের জন্য বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে রোহিতকে। তাঁর জায়গায় ভারতের ইনিংস ওপেন করতে নেমেছিলেন লোকেশ রাহুল ও শিখর ধাওয়ান।

শুধু রোহিতই নন, মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের সূর্যকুমার যাদব কিংবা ঈশান কিষানকেও খেলতে নেওয়া হয়নি এই ম্যাচে। ওদিকে কোহলি ছাড়াও কোহলির ফ্র্যাঞ্চাইজি রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর দুই স্পিনার ওয়াশিংটন সুন্দর ও যুজবেন্দ্র চাহালকে নেওয়া হয়েছিল একাদশে। দুজনেই দুহাতে রান বিলিয়েছেন। চার ওভার বল করে ৪৪ রান দিয়ে এক উইকেট নিয়েছেন চাহাল, ওদিকে ২.৩ ওভার বল করে ১৮ রান দিয়ে জেসন রয়ের উইকেটটা তুলে নিয়েছেন সুন্দর। ইংল্যান্ডের জয়টাও এসেছে সুন্দরের ওভারেই।

বিজ্ঞাপন
default-image

রোহিতসহ মুম্বাই ফ্র্যাঞ্চাইজির কারও না খেলা ও কোহলিসহ বেঙ্গালুরু ফ্র্যাঞ্চাইজির ব্যর্থ হওয়া যেন ভনের টুইটকেই আরও ভালোভাবে সমর্থন দিয়েছে!

তবে ভনই যে প্রথম এ কথা বললেন, তা নয়। আইপিএলের সর্বশেষ আসরের ফাইনাল শেষে আকাশ চোপড়াও একই কথা বলেছিলেন। মুম্বাইয়ের শক্তিমত্তায় মুগ্ধ আকাশ ঘোষণা দিয়েছিলেন, টি-টোয়েন্টি সংস্করণে ভারতের জাতীয় দলকে হারানোর ক্ষমতা রাখে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস।

default-image

ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং—ক্রিকেটের এই তিন বিভাগেই কোহলির দলকে মুম্বাই হারাতে পারে বলে মত দিয়েছিলেন এই ক্রিকেট বিশ্লেষক। মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের স্কোয়াডের গভীরতাও ভারতের চেয়ে বেশি বলে মনে হয়েছিল আকাশ চোপড়ার কাছে। ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রায় সব খেলোয়াড়কেই ম্যাচজয়ী আখ্যা দিয়েছিলেন, যারা যেকোনো মুহূর্তে দলকে হারের মুখ থেকে বের করে আনতে পারে।

চোপড়া বলেছিলেন, ‘মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের কোনো দুর্বলতা নেই। কোনো সন্দেহ নেই মুম্বাই বিশ্বের সেরা ফ্র্যাঞ্চাইজি দল। ভারত জাতীয় দলের সঙ্গে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেললে এবং রোহিত, হার্দিক ও বুমরা মুম্বাইয়ে খেললে তারা ভারতকে হারিয়ে দেবে বলেই মনে করি। ভারতীয় দলের সবচেয়ে বড় শক্তি হলো বুমরার বোলিং ও রোহিতের ওপেন করা—তারা তো মুম্বাইয়েই খেলবে।’

ড্রেসিংরুম থেকে কোহলি ও তাঁর ফ্র্যাঞ্চাইজির খেলোয়াড়দের ব্যর্থ হওয়া দেখে রোহিতের ঠোঁটের কোণে হাসি ফুটেছে কি না, কে জানে!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন