আবারও সন্দ্বীপে বশ মেনেছেন কোহলি।
আবারও সন্দ্বীপে বশ মেনেছেন কোহলি। ছবি: আইপিএল ওয়েবসাইট

ক্রিকেট–ভক্তদের কাছে ‘বানি’ শব্দটা অনেক পরিচিত।

কোনো বিশেষ বোলারের কাছে যদি কোনো ব্যাটসম্যান বারবার ধরাশায়ী হন, তাহলে সেই ব্যাটসম্যানকে উক্ত বোলারের ‘বানি’ বলা হয়। বাংলাদেশের মোস্তাফিজুর রহমানের ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে যেমন তাঁর বানি হিসেবে ভাবা হতো ভারতীয় ওপেনার রোহিত শর্মাকে। এখন যেমন ইংলিশ পেসার জফরা আর্চারের কাছে বারবার নাকাল হন অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার। অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তি লেগ স্পিনার শেন ওয়ার্নের কাছে দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান ড্যারিল কালিনানের বানি বনে যাওয়ার কথা তো ক্রিকেটীয় রূপকথার অংশ হয়ে গেছে এখন। ওয়ার্নের স্বদেশি পেসার গ্লেন ম্যাকগ্রার বানি ছিলেন ইংলিশ ব্যাটসম্যান মাইক আথারটন, ১৭ টেস্টে আথারটনের উইকেট ম্যাকগ্রা পেয়েছেন ১৯ বার। আশির দশকে পাকিস্তানের মুদাসসার নজরকে আউট করার টোটকা জানা ছিল ভারতীয় পেসার কপিল দেবের। ১৮ টেস্টে মুদাসসারকে ১২ বার প্যাভিলিয়নে ফিরিয়েছেন কপিল।

default-image

কিন্তু বিরাট কোহলি কার বানি? প্রশ্নটা উঠতেই ভ্রু কুঁচকে ওঠা স্বাভাবিক। তর্কযোগ্যভাবে বর্তমানে বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান কারও বানি হতে যাবেন কোন দুঃখে? বরং তাঁকে থামানোর উপায় খুঁজতেই তো অগণিত বিনিদ্র রজনী কাটানোর কথা আর্চার-বোল্ট-কামিন্স কিংবা রশিদ খানদের। তবে অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, বিশ্বে এমন বোলারও আছেন, যাঁর কাছে কোহলিও খাবি খান বারবার। ভারতীয় অধিনায়ক বারবারই আটকে যান তাঁর খাঁচায়। তবে তিনি অতি পরিচিত কেউ নন। তাঁর নেই আর্চার-কামিন্স-রশিদদের মতো বিশ্বব্যাপী পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা। অখ্যাত ভারতীয় এই বোলারের নাম সন্দ্বীপ শর্মা।

বিজ্ঞাপন

তেমন পরিচিত না হলেও আইপিএলে বেশ পরিচিত মুখ এই সন্দ্বীপ। এই আইপিএলেই কোহলিকে গুনে গুনে সাতবার আউট করেছেন এই মিডিয়াম পেসার। সব শেষ আউট করলেন গত রাতে। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে এই ম্যাচে খেলতে নেমেছিল কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। হায়দরাবাদের সন্দ্বীপের কাছে এই ম্যাচেও বশ মেনেছেন কোহলি। সন্দ্বীপের দুর্দান্ত এক আউটসুইঙ্গারে ড্রাইভ করতে গিয়ে একটু গড়বড় করে ফেলেন কোহলি, শর্ট এক্সট্রা কাভারে ধরা পড়েন কেন উইলিয়ামসনের হাতে। তার আগে সাত বলে মাত্র সাত রান করতে পেরেছিলেন কোহলি। শুধু কোহলিই নয়, এদিন রান করতে সংগ্রাম করতে হয়েছে বেঙ্গালুরুর অন্যান্য ব্যাটসম্যানেরও। ২০ ওভারের ম্যাচে ৭ উইকেটে ১২০ রান তুলেছিল বেঙ্গালুরু। শেষমেশ ১৪ ওভার ১ বলেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় হায়দরাবাদ।

সন্দ্বীপের দলের বিরুদ্ধে এ নিয়ে ১২ বার মাঠে নেমেছেন কোহলি, আউট হয়েছেন ৭ বার। ১৩৯ স্ট্রাইক রেটে রান করতে পেরেছেন মাত্র ৬৮। এই মিডিয়াম পেসার বল করতে এলে কোহলি যে হাঁসফাঁস করেন, রানের পরিমাণ সেটিই প্রমাণ করে। অথচ জাতীয় দলের ধারকাছ দিয়েও নেই এই ডানহাতি মিডিয়াম পেসার। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শুধু দুটি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন ভারতের জার্সি গায়ে। ব্যস। এর আগে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবে খেলার সময় এই বেঙ্গালুরুর বিপক্ষেই এক ওভারে বিরাট কোহলি, ক্রিস গেইল ও এবি ডি ভিলিয়ার্সকে আউট করে রাতারাতি আলোচনায় চলে আসেন এই ক্রিকেটার। আইপিএল ক্যারিয়ারে এর মধ্যেই ১০৫ উইকেট পাওয়া হয়ে গেছে তাঁর।

default-image

আইপিএলে কোনো নির্দিষ্ট বোলারের বলে সাতবার একই ব্যাটসম্যানের আউট হওয়ার ঘটনা আছে আর মাত্র একটি। চেন্নাই সুপার কিংসের অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি আইপিএলে এর আগে সাতবার আউট হয়েছেন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু, মুম্বাই ইন্ডিয়ানস ও দিল্লি ডেয়ারডেভিলসে খেলা সাবেক ভারতীয় পেসার জহির খানের বলে।

মন্তব্য পড়ুন 0