বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্কটল্যান্ড ইনিংসের পরের দশ ওভারের গল্পের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন রিচি বেরিংটন। ৩৭ বল খেলে ৪টি চার ও ১টি ছক্কায় ৫৪ রান করে অপরাজিত থাকেন। তাঁর ইনিংসেই স্কটল্যান্ড শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১১৭ রান করেছে।

এর আগে বরাবরের মতো পাকিস্তানকে ভালো সূচনা এনে দেন দুই পাকিস্তানি ওপেনার বাবর ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। পাওয়ারপ্লেতে মাত্র ৩৫ রান এলেও উইকেট হারায়নি পাকিস্তান। পরে সেই সুবিধাটা পেয়েছে পাকিস্তান। মাঝের ওভারে রিজওয়ান, ফখর জামানের উইকেট হারালেও রানের গতি বাড়াতে থাকেন বাবর ও অভিজ্ঞ মোহাম্মদ হাফিজ। দুজন মিলে ৩২ বলে ৫৩ রান যোগ করেন তাঁরা। জুটিতে মূলত নায়ক ছিলেন হাফিজ। ১৯ বলে ৩১ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। ৪টি চার ও ১টি ছক্কা ছিল হাফিজের বিধ্বংসী ইনিংসে।

default-image

হাফিজ আউট হলেও তাঁর দায়িত্বটা পালন করেন আরেক অভিজ্ঞ মালিক। ক্রিজে এসেই শারজার ছোট বাউন্ডারিতে চার-ছক্কার বৃষ্টি নামান। প্রথমে বাবর ও পরে আসিফ আলীর সঙ্গে দুটি জুটি গড়েন মালিক। ৪৭ বল খেলে ৬৬ রান করো বাবরও দ্রুত রান তুলতে থাকেন।

দ্রুত রানের চেষ্টায় বাবর আউট হলে মালিককে সঙ্গ দিতে ক্রিজে আসেন আসিফ। তিনি অবশ্য মালিককে শুধু সঙ্গই দিয়েছেন। কারণ ৪ বল খেলে ৫ রান করা আসিফ অন্য প্রান্ত থেকে শুধু মালিকের বিধ্বংসী ব্যাটিংই দেখেছেন। মাত্র ১৮ বলে ৫৪ রানের বিস্ফোরক ইনিংসে ১টি চার ও ৬টি ছক্কা মারেন মালিক। এবারের বিশ্বকাপে দ্রুততম ফিফটি এটি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন