পাকিস্তানের জন্য এ ম্যাচটা এক অর্থে প্রতিশোধেরও। গত সেপ্টেম্বরে পাকিস্তান গিয়ে কোনো ম্যাচ না খেলেই সফর বাতিল করে দেশে ফেরে নিউজিল্যান্ড দল।

পরে ইংল্যান্ডও পাকিস্তান সফর বাতিল করে। নিরাপত্তা শঙ্কার কথা বললেও ঠিক স্পষ্ট করে কিছু বলেনি দুই দল। তখন থেকেই এ ম্যাচের অপেক্ষায় ছিল পাকিস্তান ক্রিকেট।

default-image

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) বর্তমান চেয়ারম্যান রমিজ রাজা তখন স্পষ্ট করে বলেছিলেন, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তিনটি লক্ষ্য পাকিস্তানের। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে হারানোর লক্ষ্য তো সব সময়ই থাকে। এর পাশাপাশি নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডকেও হারাতে হবে।

পাকিস্তানের সাবেক পেসার শোয়েব আখতার টুইট করেছিলেন, ‘টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেই তোমাদের দেখে নেব। বিশেষ করে নিউজিল্যান্ড, তোমাদের!’ ভারত ও নিউজিল্যান্ডকে হারানোর পর এবার পাকিস্তানের সে প্রতিজ্ঞা–পূরণের পথে বাকি রইল শুধু ইংল্যান্ড।

নিজেদের ইনিংসে শেষ ৫ ওভারে দারুণ ব্যাট করেছে পাকিস্তান। এর বাইরে গোটা ম্যাচে বোলিং সবচেয়ে ভালো করেছে দলটি। দুই ওপেনার মার্টিন গাপটিল (১৭) ও ড্যারিল মিচেলকে (২৭) নবম ওভারের মধ্যে তুলে নেওয়ার পাশাপাশি রানের চাকাও আটকে রেখেছিলেন হারিস রউফ ও শাহিন আফ্রিদিরা।

মিচেল ও ডেভন কনওয়ের ব্যাট থেকে এসেছে সর্বোচ্চ ২৭ রানের ইনিংস। ২২ রানে ৪ উইকেট নেন পেসার রউফ। পাকিস্তানের বোলাররা ৫৩টি ‘ডট’ আদায় করে নেন নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে।

ভারতের বিপক্ষে যেভাবে রানা তাড়া শুরু করেছিলেন পাকিস্তানের দুই ওপেনার বাবর ও মোহাম্মদ রিজওয়ান, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও সেই একই ধারা ও গতিতে এগোচ্ছিলেন দুজন। ৫.১ ওভারে বাবর )৯) সাউদির বলে আউট হওয়ার আগে ওপেনিং জুটিতে এসেছে ২৮ রান।

টি–টোয়েন্টিতে তৃতীয় বোলার হিসেবে শততম উইকেটের দেখা পান কিউই পেসার সাউদি। ১১তম ওভারে রিজওয়ান ইশ সোধির শিকার হওয়ার আগে করেছেন ৩৪ বলে ৩৩ রান। তখন একটু বিপাকেই পড়েছিল পাকিস্তান। পাকিস্তানের দুই সেরা (বাবর–রিজওয়ান) ব্যাটসম্যানের কেউ–ই যে তখন উইকেটে নেই। তখন জয়ের জন্য ৪৮ বলে ৬৫ রান দরকার ছিল পাকিস্তানের।

default-image

শোয়েব মালিক এখান থেকে ম্যাচটা টেনে নিয়ে যান শেষের পথে। যোগ্য সঙ্গ দেন আসিফ আলী। ১৮তম ওভারে মিচেল স্যান্টনারের কাছ থেকে ১৫ রান আদায় করে লক্ষ্যটা ১২ বলে ৯ রানে নামিয়ে আনেন দুজন। ১৯তম ওভারে গিয়ে ম্যাচ শেষ করেন ২০ বলে ২৬ রানে অপরাজিত থাকা শোয়েব। ৩ ছক্কা ও ১ চারে ১২ বলে ২৭ রানে অপরাজিত ছিলেন আসিফ। ২৮ রানে ২ উইকেট নেন সোধি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন