default-image

শ্রীলঙ্কা দিনের খেলা শুরু করেছিল ২ উইকেটে ১৮৪ রান নিয়ে। ৮৪ রান করা কুশল মেন্ডিসের সঙ্গে ৬ রানে অপরাজিত ছিলেন ম্যাথুস। ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে গল টেস্টের তৃতীয় দিনটা যে ব্যাটসম্যানদের হবে, সেটি সকালের সেশনেই বোঝা যাচ্ছিল। দিনের তৃতীয় ওভারে মেন্ডিসের আউট বাদ দিলে প্রথম সেশনটা ছিল শ্রীলঙ্কারই। মেন্ডিসের দুর্ভাগ্য, নাথান লায়নের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন তিনি। দলীয় ১৮৬ রানে আউট হওয়া কুশল মেন্ডিস ১৬১ বল খেলে ৮৫ রান করেছেন। ৯টি চার ছিল তাঁর ইনিংসে।

দিনের শুরুতে উইকেট পড়লেও ম্যাথুস ও চান্ডিমাল প্রথম সেশনের বাকি সময়টা কাটিয়ে দেন অবিচ্ছিন্ন থেকে। দুজনেরই চেষ্টা ছিল উইকেটে পড়ে থাকার। সেটিতে তাঁরা সফলও হয়েছেন। মধ্যাহ্নবিরতির আগে আর উইকেট পড়েনি। শ্রীলঙ্কা বিরতিতে যায় ৩ উইকেটে ২৬২ রান নিয়ে। দিনের দ্বিতীয় সেশনের শুরুতে ১১৪ বল খেলে ফিফটি পূর্ণ করেন ম্যাথুস। তবে ইনিংসটি দীর্ঘ হতে দেননি মিচেল স্টার্ক। ৫২ রানের সময় মারনাস লাবুশেনের হাতে ক্যাচ তোলেন তিনি।

default-image

এরপরের গল্পে নায়ক শুধু চান্ডিমাল, পার্শ্বনায়ক অভিষিক্ত কামিন্দু মেন্ডিস। অস্ট্রেলীয় বোলারদের হতাশ করে পঞ্চম উইকেটে ১৩৩ রানের জুটি গড়েন। বাঁহাতি-ডানহাতি জুটি লায়নের পরীক্ষা নিয়েছে। এক প্রান্ত থেকে লায়নকে বোলিংয়ে রেখে বাকি বোলারদের অন্য প্রান্ত থেকে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বোলিং করিয়েছেন প্যাট কামিন্স। কিন্তু কিছুই কাজে দেয়নি।

ইনিংসের ১৩৩তম ওভারে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন চান্ডিমাল। লায়নের অফ স্পিন কাভারে ঠেলে দ্রুতগতির সিঙ্গেল নিয়ে তিন অঙ্ক স্পর্শ করেন ৩২ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান। এটি তাঁর টেস্ট ক্যারিয়ারের ১৩তম সেঞ্চুরি। তাঁর ১২তম টেস্ট সেঞ্চুরিটি এসেছিল বাংলাদেশের বিপক্ষে মিরপুরে।

default-image

চান্ডিমালের সেঞ্চুরির পরই নিজের ভুলে আউট হন কামিন্দু মেন্ডিস। ঠিক পরের ওভারে করা মিচেল সোয়েপসনের লেগ স্পিনে স্লগ সুইপ খেলতে গিয়ে বল স্টাম্পে টেনে বোল্ড হন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। ১৩৭ বলে ৬১ রান করেছেন কামিন্দু। এরপর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি নিরোশান ডিকভেলাও। দলকে ৪০৯ রানে রেখে ফিরেছেন ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ১০ উইকেট হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম টেস্ট ছিল সেটি। দুই দলের দ্বিতীয় টেস্টের ভাগ্যে কী লেখা আছে, সেটিই এখন দেখার অপেক্ষা।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন