default-image

রবার্ট কি শাস্ত্রীর পরামর্শ গ্রহণ করতে পারবেন? যদি পারেন, সেটি তাঁর জন্য গুরুত্বপূর্ণও হতে পারে। ইংল্যান্ডের দ্য গার্ডিয়ানকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নিজের অভিজ্ঞতার কথাই তুলে ধরেছেন শাস্ত্রী, ‘আমার কোচিংয়ের কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছিল না। ওই যে লেভেল ওয়ান, লেভেল টু, কী সব যেন বলে! আমি ওসব পরোয়া করি না। ভারত এমন একটা দেশ, যেখানে কিছু মানুষ আপনাকে ঈর্ষা করবেই, কিছু মানুষ মনেপ্রাণে চাইবে আপনার ব্যর্থতা। আমার চামড়া মোটা। ডিউক বলের আবরণের চেয়েও মোটা। ওটার ভেতরে নিজেকে আমি লুকিয়ে রাখতাম।’

রবার্ট কি–র জন্য তাঁর সবচেয়ে আরেকটি পরামর্শ হচ্ছে দলের ক্রিকেটারদের চেনা, ‘যেকোনো জাতীয় ক্রিকেট দলের কোচিং করানোর অন্য রকম একটা তাৎপর্য আছে। সবচেয়ে আগে ক্রিকেটারদের বুঝতে হবে আপনার। নিজে থেকেই দলে একটা সংস্কৃতি তৈরি করতে হবে। নিজের বিশ্বাস ঠিক রাখতে হবে। সেই সঙ্গে বুঝতে হবে প্রতিটি খেলোয়াড়কে। দলকে জেতার মানসিকতায় ঢুকিয়ে দিতে হবে। নির্মোহ থাকাটাও গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি সব খেলোয়াড়ের সঙ্গে সমান আচরণ করেন, তাহলে খেলোয়াড়দের মধ্যে জয়ের মানসিকতা এসে যাবে। যেকোনো দলের জন্যই বিদেশের মাটিতে জেতাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

default-image

রব কি সফল হবেন? শাস্ত্রী বলেন, ‘যেকোনো জাতীয় দলের কোচিং করানোর অন্য তাৎপর্য আছে। সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ হলো, ক্রিকেটারদের বুঝে নেওয়া। মাঠের বাইরে থেকে একটা সংস্কৃতি তৈরি করা, সুর বেঁধে দেওয়া। নিজের বিশ্বাস, খেলোয়াড়দের সম্পর্কে কী ভাবনা—এগুলো খুব গুরুত্বপূর্ণ। তারপর দলের মধ্যে জেতার মানসিকতা নিয়ে আসা। তার জন্য নিজেকে নির্মম, নির্মোহ হতে হবে। এখন যেকোনো দলের ক্ষেত্রে আসল চ্যালেঞ্জ হলো বিদেশের মাটিতে জেতা।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন