আজও পুনেতে ছক্কা-বৃষ্টি হয়েছে।
আজও পুনেতে ছক্কা-বৃষ্টি হয়েছে।ছবি: এএফপি

পাওয়ার হিটিং কাকে বলে সেটা দেখিয়ে দিচ্ছে ভারত ও ইংল্যান্ড। প্রতি ম্যাচেই ৩০০ ছাড়ানো স্কোর দেখা যাচ্ছে। সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ভারত ৩৩৬ রান করেও সে স্কোর নিরাপদ প্রমাণ করতে পারেনি। ৩৩৭ রান করতে ইংল্যান্ডের মাত্র ৪৩.৩ ওভার লেগেছিল। আজ তৃতীয় ওয়ানডেতে ভারত শেষ দিকে ভয়ংকর এক ব্যাটিং ধস দেখেছে। তবু ৩২৯ রান তুলে ফেলেছে স্বাগতিক দল।

সীমিত ওভারে তর্কসাপেক্ষে সেরা দুই দলের খেলায় কোনো স্কোরকে নিরাপদ মনে করতে দিচ্ছেন না দুই দলের ব্যাটসম্যানরা। একদিকে রোহিত শর্মা, ঋষভ পন্ত, হার্দিক পান্ডিয়ারা বোলারদের ওপর তাণ্ডব চালাচ্ছেন। ওদিকে বল হারানোর প্রতিযোগিতায় নামছেন জনি বেয়ারস্টো, বেন স্টোকসরা। আর সে সুবাদেই হয়ে গেছে বিশ্ব রেকর্ড। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে এত বেশি ছক্কা এর আগে দেখা যায়নি।

বিজ্ঞাপন
default-image

প্রথম দুই ওয়ানডেতে ধীরে শুরুর নীতিতে এগিয়েছিল ভারত। কিন্তু ইংল্যান্ড ইনিংসের শুরু থেকেই আগ্রাসী ক্রিকেট খেলেছে। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ধীরে শুরু নীতির কারণেই ভারত হেরেছে বলে বেশ সমালোচনা হয়েছিল। এ কারণে আজ শুরু থেকেই আক্রমণে গিয়েছিল দলটি। ১৪ ওভারে ১০০ পেরিয়েছে। শিখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মা অবশ্য চারই বেশি মেরেছেন। উদ্বোধনী জুটিতে দুজন ১৬টি চার মেরেছিলেন।

ভারতের ইনিংসে ছক্কার ঝড় শুরু হয়েছে ঋষভ পন্তের হাত ধরে। ৬২ বলে ৫ চারের সঙ্গে ৪ ছক্কা মেরেছেন পন্ত। ভারতকে ৩৫ ওভারেই আড়াই শ এনে দেওয়ার পেছনে পন্তের সঙ্গে অবদান ছিল হার্দিক পান্ডিয়ারও।

৪৪ বলে ৬৪ রান তোলার পথে পান্ডিয়াও ৪ ছক্কা মেরেছেন। আর পান্ডিয়ার বিদায়ের পর ভারতকে তিন শ পার করে দিয়েছেন শার্দুল ঠাকুর। ৩০ রানের ইনিংসেই এই পেসার ৩ ছক্কা মেরেছেন। এই ১১ ছক্কায় তিন ম্যাচের সিরিজের আগের ছক্কার রেকর্ড স্মৃতি থেকে হারিয়ে যাওয়ার দশা।

default-image

ভারতের ইনিংস শেষ হওয়া পর্যন্ত এই সিরিজে ৬৩ ছক্কা মেরেছে দুই দল। তিন ম্যাচের সিরিজে এর আগের রেকর্ডটি ছিল ৫৭ ছক্কার। ২০১৯ সালে নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার সিরিজে দুই দল মিলে ৫৭ ছক্কা মেরেছিল।

এক সময় তিন ম্যাচ সিরিজের ছক্কার রেকর্ডটি ভারত ও ইংল্যান্ডেরই ছিল। ২০১৭ সালে এই দুই দলের সিরিজে ৫৬ ছক্কা দেখা গিয়েছিল। এবার সে সব রেকর্ডও তুচ্ছ মনে হচ্ছে। এর জন্য বেন স্টোকস ও জনি বেয়ারস্টো আলাদা করে ধন্যবাদ পেতে পারেন। সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে সাতটি করে ছক্কা মেরেছেন বেয়ারস্টো। আর স্টোকস দ্বিতীয় ম্যাচেই মেরেছিলেন ১০ ছক্কা।

আজ ৩৩০ রানের লক্ষ্যে নামা ইংল্যান্ডের শুরুটা অবশ্য প্রত্যাশামতো হয়নি। সে কারণে অমন ছক্কা বৃষ্টিও দেখা যায়নি। তবু এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ছক্কার রেকর্ডটি আরও ৩ বাড়িয়ে নিয়েছে ইংল্যান্ড। ২৬ ওভার শেষে ৬ উইকেটে ১৬৮ রান তুলেছে সফরকারীরা।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন