বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

২০১১ বিশ্বকাপ উপলক্ষে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের আধুনিকায়ন করা হয়। সে সময় গ্যালারির এক পাশ দোতলা করে পুরো স্টেডিয়ামে প্লাস্টিকের চেয়ার বসানো হয়। কিন্তু আজ দশ বছর পর সেই চেয়ারগুলোর বেহাল দশা। করোনাকালে মাঠে দর্শক প্রবেশ বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরই অবস্থাটা যেন বেশি খারাপ হয়েছে। গ্যালারির কোথাও চেয়ার আছে কোথাও নেই, চেয়ার থাকলেও সেগুলোর অবস্থা ভালো নয়। রক্ষণাবেক্ষণের দুর্বলতায় চেয়ার ভেঙে গেছে অনেক জায়গাতেই। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে সেই চেয়ারগুলো না থাকলেই যেন ভালো হতো। কারণ সেই চেয়ারগুলোয় বসে খেলা দেখা অসম্ভবই।

default-image

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের ভেন্যু ম্যানেজার ফজলে বারি খান অবশ্য জানিয়েছেন, নতুন করে চেয়ার বসতে যাচ্ছে স্টেডিয়ামে, ‘চেয়ারগুলো ভেঙে গেছে অনেক আগেই। আমরা আরএফএলকে কার্যাদেশ দিয়েছি চেয়ার বসানোর। শিগগিরই তারা কাজ শুরু করবে। আশা করছি বিপিএলের আগেই নতুন চেয়ার বসে যাবে স্টেডিয়ামে।’

নতুন করে চেয়ার বসানোর হচ্ছে বোর্ডের তত্ত্বাবধানে। এত দিন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের দিকে তাকিয়ে ছিল বিসিবি। কিন্তু কোনো কাজ না হওয়ায় গ্যালারির সংস্কারের দায়িত্বটা নিজেদের কাঁধেই তুলে নিয়েছে ক্রিকেট বোর্ড।

default-image

ক্রিকেট বোর্ডই নাকি দেশীয় কোনো প্রতিষ্ঠানকে কাজটা দিতে বলেছে, যেন পরে সংস্কার করাটা সহজ হয়। কথাটা জানিয়েছেন ভেন্যু ম্যানেজারই, ‘বিসিবি এখন নিজেরাই চেয়ার বসাচ্ছে। এ ব্যাপারে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের অপেক্ষায় ছিল বোর্ড। এসব চেয়ার তারাই আগে বসিয়েছিল। কোভিডের আগেই সভাপতি সাহেব বলেছিলেন চেয়ার লাগিয়ে ফেলতে। কিন্তু কোভিডের কারণে পারিনি। তিনিই বলেছিলেন দেশীয় কোনো প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে কাজ করাতে, কোনো কারণে এক বছরের মধ্যে যদি নষ্ট হলে যে তাদের দিয়েই দ্রুত সংস্কার করা যায়।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন