টানা তিনটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতেছে নিউজিল্যান্ড।
টানা তিনটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতেছে নিউজিল্যান্ড। ছবি: এএফপি

টি-টোয়েন্টিতে প্রত্যাবর্তনের নতুন গল্প লেখার সুযোগ ছিল অস্ট্রেলিয়ার। গল্পটা প্রথম দল হিসেবে সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচ হেরেও পাঁচ ম্যাচের সিরিজ জয়ের। কিন্তু নিউজিল্যান্ড তা হতে দেয়নি। আজ ওয়েলিংটনে শেষ টি-টোয়েন্টিতে সহজ জয়ে পেয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজটা ৩-২ ব্যবধানে জিতে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড। মাত্র ১৪৩ রানে লক্ষ্য পায় আগের দুটি ম্যাচ হারা স্বাগতিকেরা। ২৭ বল ও ৭ উইকেট হাতে রেখেই লক্ষ্যটা ছুঁয়ে ফেলে নিউজিল্যান্ড। এই নিয়ে সব সংস্করণে টানা পাঁচটি সিরিজ জিতল নিউজিল্যান্ড।

সিরিজের আগের দুটি ম্যাচে পরে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়ার কাছে বড় ব্যবধানে হেরেছিল নিউজিল্যান্ড। আজ টস হেরে আবারও ফিল্ডিং পায় দলটি। এবার অবশ্য অস্ট্রেলিয়াকে বড় রান করতে দেয়নি নিউজিল্যান্ড। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন জোর দিয়েছিলেন স্পিনে। অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসের ১২ ওভার করেছেন নিউজিল্যান্ডের চার স্পিনার।

অস্ট্রেলিয়ার হারানো ৮ উইকেটে ৪টি নিলেও গ্লেন ফিলিপস ছাড়া বাকি তিন স্পিনার অস্ট্রেলীয়দের রানের চাকায় গতি তুলতে দেননি। কোনো উইকেট না পেলেও বাঁহাতি স্পিনার মিচেল স্যান্টনার ৪ ওভারে খরচ করেন মাত্র ২১ রান। লেগ স্পিনার ইশ সোধি ৪ ওভারে ২৪ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। পাঁচ ম্যাচে ৯ উইকেট নেওয়া সোধির হাতেই উঠেছে সিরিজসেরার পুরস্কার।

বিজ্ঞাপন
default-image

ম্যাচসেরার পুরস্কারটা অবশ্য পেয়েছেন মার্টিন গাপটিল। নিউজিল্যান্ড ওপেনার ৪৬ বলে করেছেন ৭১ রান। মেরেছেন ৭টি চার ও ৪টি ছক্কা। ডেভন কনওয়ের সঙ্গে গাপটিলের ১০৬ রানের উদ্বোধনী জুটিই সব শঙ্কা দূর করে দেয় নিউজিল্যান্ডের। ২৮ বলে ৩৬ রান করেন কনওয়ে। ১২তম ওভারে পঞ্চম বলে কনওয়ের বিদায়ে ভাঙে জুটি।

এরপর অধিনায়ক উইলিয়ামসন কোনো রান না করে ফেরার পর দলকে ১২৪ রানে রেখে গাপটিল বিদায় নিলেও বাকিটা পথ পাড়ি দিতে কোনো সমস্যা হয়নি কিউইদের। ১৬ বলে ৫ চার ও ২ ছক্কায় ৩৪ রান করে কাজটা সেরে ফেলেন গ্লেন ফিলিপস।

এর আগে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে ২৯ বলে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেন ম্যাথু ওয়েড। ৬৬ রানের দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তাঁর সঙ্গী অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ করেছেন ৩৬ রান। দশম ওভারে দলকে ৭৪ রানে রেখে দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ফিঞ্চের বিদায়ের পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় অস্ট্রেলীয়রা।

default-image

ম্যাচ শেষে নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন জানালেন, পরিকল্পনা কাজে লেগেছে তাঁদের, ‘আমরা আগের দুই ম্যাচের চেয়ে ভালো খেলতে চেয়েছিলাম। ভালো লাগছে যে আমরা উন্নতির কিছুটা চিহ্ন রাখতে পেরেছি। এটা তো স্পষ্ট যে এই উইকেটে স্লো বোলারদের খেলা সহজ নয়।’

অকল্যান্ডে করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে সিরিজের শেষ তিনটি ম্যাচই হয়েছে ওয়েলিংটনে। অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ অবশ্য উইকেটকে না দুষে দুষেছেন নিজেদের ব্যাটিংকে, ‘আমরা হয়তো ব্যাট হাতে অতটা আক্রমণাত্মক হতে পারিনি। আমরা বেশি রান করতে পারিনি, উইকেট হারিয়েছি নিয়মিত। আমি মনে করি, পিচ দারুণ ছিল। মিচ স্যান্টনার নতুন বলে চমৎকার বোলিং করেছে। সে আমাদের চড়াও হওয়ার কোনো সুযোগই দেয়নি।’

টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট মিলিয়ে টানা পাঁচটি সিরিজ জেতা নিউজিল্যান্ড এরপর খেলবে বাংলাদেশের বিপক্ষে।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন