বিজ্ঞাপন

গতকাল কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে আরও একবার টের পাওয়া গেছে গেইল-প্রভাব। ১৫০ রানের লক্ষ্যে খুব ধীরে শুরু করেছিল পাঞ্জাব। কিন্তু গেইল নামার পর ম্যাচের রূপ বদলে গেছে একেবারে। ৬১ বলে ১০০ রানের জুটি গড়েছেন মনদীপ সিংয়ের সঙ্গে। এর মধ্যে গেইলের ইনিংসটি ছিল ২৯ বলে ৫১ রানের। ২ চার ও ৫ ছক্কার ইনিংসেই ম্যাচের মোড় ঘুরে গেছে। এমন এক ইনিংসের পর আবারও স্তুতি বাক্যে ভেসে গেছেন গেইল।

default-image

ম্যাচ শেষে চল্লিশ পেরিয়েও এমন পারফরম্যান্স করার রহস্য জানিয়েছেন গেইল, ‘দল ও নিজের ব্যাপারে খুব ভালো বোধ করছি। সেটাই কাজে লাগাচ্ছি, কিন্তু এখনো অনেক পথ বাকি। খুব ভালো দুজন স্পিনার ছিল, আমাদের দ্রুত মানিয়ে নিতে হয়েছে। তারা কী করছে সেটা দ্রুত বুঝতে হয়েছে। আর একবার ভালো শুরু পাওয়ার পর মনদীপের ওপর চাপও কমে গেছে। সুনীল নারাইন আমাকে বহুবার আউট করেছে। সে বিশ্বের সেরা স্পিনার। তাই বল ঘুরছে এমন এক উইকেট পেলে সেটা কাজে লাগাতেই হবে।’

ম্যাচ শেষে জয়ের দুই নায়ক মনদীপ ও গেইল নিজেদের মধ্যে মজা করছিলেন। মনদীপের সাক্ষাৎকার নিচ্ছিলেন গেইল। সেখানেই মনদীপ বলেছেন, গেইলের কখনোই অবসর নিয়ে ভাবা উচিত না। উত্তরে গেইল বলেছেন, ‘অবসর বাতিল’ এবং ‘এত দ্রুত কোনো অবসরের ঘোষণা দেওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।’ ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনেও মনদীপ বলেছেন, ‘তার কখনো অবসর নেওয়া ঠিক না। সে দারুণ ছন্দে আছেন। আমি কখনো তাকে অস্বস্তিতে পড়তে দেখিনি। গেইল সম্ভবত সর্বকালের টি-টোয়েন্টি খেলোয়াড়।

গেইল নিজেও তরুণ খেলোয়াড়দের জন্য আদর্শ হয়ে উঠছেন। সপ্তাহের শুরুতেই বাবাকে হারিয়েছেন মনদীপ। এমন অবস্থায় মাঠে নামছেন এই ব্যাটসম্যান। মনদীপে যেন কঠিন পরিস্থিতিটা সামলে নিতে পারেন সেটা চেষ্টা করছেন গেইল, ‘মনদীপ কঠিন সময়ের মধ্যে যাচ্ছে। সর্বশেষ ম্যাচে (সানরাইজার্স) আমরা সবাই ওর জন্য জিততে চেয়েছি। আকাশের দিকে তাকিয়ে যেভাবে ওপর থেকে নজর রাখা বাবাকে দেখাল, সেটা কী সুন্দর লাগছিল! আজ (কাল) কোচ অভিজ্ঞদের বলেছে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আমাদের এগিয়ে আসতে হবে। আমরা খুশি সেটা সবাই করতে পেরেছি। দলের তরুণেরাও বলছে, অবসর নিও না।’

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন