বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এমন একজন ব্যাটসম্যানকে খেলানো হলো, যে রান পাচ্ছে না, মানসিকভাবে বিপর্যস্ত মনে হচ্ছে। মিডল অর্ডারের সব ব্যাটসম্যানই কয়েক ওভার বেশি পেলে ইনিংস বড় করতে চায়। সৌম্যকে দোষ দেওয়া যায় না, এমন ডেলিভারিতে আউট হলে কিছু করার থাকে না। আফিফ ১২ ওভার পেয়েছিল আজ, এরপর নেমেই যে শট খেলল, সেটা অবিশ্বাস্য। দলের সঙ্গে থেকেও একজন ক্রিকেটারের মানসিকতা পড়তে না পারাটা কিন্তু দলের নীতিনির্ধারকদের একটা ব্যর্থতা। এর আগে মাহমুদউল্লাহ-মুশফিকের আউট হওয়া দেখার পরও একজন ব্যাটসম্যান যখন প্রথম বলেই ডাউন দ্য উইকেটে যায়, তার মানসিক অবস্থাটা বোঝা যায়।

দলের পাশে দাঁড়াতে এ দলের নীতিনির্ধারকদের পুরোপুরি ব্যর্থ মনে হয়েছে আমার। কোচ, বিশ্লেষক, নির্বাচক—সবাই থাকার পরও এসব সিদ্ধান্ত আসে। মানসিকভাবে বিপর্যস্ত একটা দলকে গাইড করা বা কন্ডিশন বিবেচনায় দল নির্বাচনের সামর্থ্য নেই তাদের। আমার মনে হয়, এ ম্যাচের পরিকল্পনার অভাব বা দল নির্বাচন দেখে ক্রিকেট বোর্ডের কাজটা খুব সহজ হয়ে গেল। এ কোচের চুক্তি নবায়ন করলে বাংলাদেশের ক্রিকেট কোন দিকে যাবে, সেটার প্রমাণ পাওয়া গেছে। ফলে তাকে বাদ দেওয়াটা সহজ এখন। সে যে থাকার উপযুক্ত না, সেটা প্রমাণ আজ দিয়েছে।

অবশ্য ব্যক্তিগতভাবে দুই দল মিলিয়ে পাঁচ পেসার, বিশেষ করে রাবাদা ও তাসকিনের বোলিং উপভোগ করেছি আমি। এ ম্যাচের পেস বোলিংয়ে টেস্টের একটা আমেজ পাওয়া গেছে। এমন পিচে অভ্যস্ত ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে তাসকিনের বোলিং দুর্দান্ত লেগেছে। তবে বিদেশি বাউন্সি কন্ডিশনে আমাদের সিনিয়র দুই ব্যাটসম্যান মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহর ব্যাটিংয়ের ধরন একটা চিন্তার কারণ। আজকে একটা জিনিস পরিষ্কার হয়ে গেল, উইকেট মন্থর হোক বা এমন পেস বোলিং সহায়ক হোক—এক প্রান্ত থেকে একজন না খেললে বাংলাদেশের জন্য ১২০ রানও পার করা কঠিন। বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টিতে যে এখনো কতটা নবীন দল, সেটা বোঝা গেল। হয়তো সেরা একাদশ ছিল না, তবে এতটা বাজে পারফরম্যান্স প্রত্যাশা করিনি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন