বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

পিসিবি বলছে, সিদ্ধান্তটা এককভাবেই নিয়েছে সফরকারীরা, ‘আজ নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড আমাদের জানিয়েছে, তাদের নিরাপত্তার কারণে সতর্ক করা হয়েছে এবং তারা এককভাবে সিরিজ স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

নিরাপত্তাজনিত কোনো হুমকি তাদের কাছে নেই, এমন দাবিও করেছে পিসিবি, ‘পিসিবি ও পাকিস্তান সরকার প্রতিটা সফরকারী দলের জন্যই পূর্ণ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডকেও আমরা একই নিশ্চয়তা দিয়েছি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী নিজে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। তাঁকে বলেছেন, আমাদের বিশ্বের অন্যতম সেরা গোয়েন্দা সংস্থা আছে। সফরকারী দলের ওপর কোনো হুমকি নেই।’

তবে হুট করেই এমন সিদ্ধান্তে এসেছে নিউজিল্যান্ড, পিসিবি বলছে এমন, ‘নিউজিল্যান্ড দলের সঙ্গে থাকা নিরাপত্তা কর্মকর্তারা পুরোটা সময় পাকিস্তান সরকারের নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়ে সন্তুষ্ট ছিলেন। পিসিবি ম্যাচ আয়োজনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। তবে পাকিস্তান ও বিশ্বজুড়ে ক্রিকেটপ্রেমীরা শেষ মুহূর্তে এসে এই স্থগিতের সিদ্ধান্তে হতাশ হবেন।’

default-image

অন্যদিকে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড (এনজেডসি) বলছে, এ ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না তাদের, ‘নিউজিল্যান্ড সরকার নিরাপত্তা নিয়ে সতর্ক করার পর ব্ল্যাকক্যাপরা পাকিস্তান সফর বাতিল করছে। রাওয়ালপিন্ডিতে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে হওয়ার কথা ছিল আজ, এরপর লাহোরে পাঁচ ম্যাচ সিরিজ হওয়ার কথা। তবে পাকিস্তানকে নিয়ে নিউজিল্যান্ড সরকারের নিরাপত্তা হুমকি অবনতি হওয়া, মাঠে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের নিরাপত্তা কর্মকর্তার পরামর্শের পর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, ব্ল্যাকক্যাপরা এ সফর চালিয়ে যাবে না। দলের পাকিস্তান ত্যাগ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

এনজেডসির প্রধান নির্বাহী ডেভিড হোয়াইট বলেছেন, ‘যে পরামর্শ পাওয়া যাচ্ছে, তাতে এ সফর চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। আমি জানি, এটা পিসিবির জন্য আঘাত। তারা দারুণ আতিথেয়তা দিয়েছে আমাদের। তবে সবার ওপরে খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা এবং এটাই (সফর বাতিল করা) একমাত্র দায়িত্বশীল সিদ্ধান্ত বলে বিশ্বাস করি আমরা।’

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট প্লেয়ারস অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান নির্বাহী হিথ মিলসও সুর মিলিয়েছেন হোয়াইটের সঙ্গে, ‘আমরা এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত এবং এ সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানাই। খেলোয়াড়েরা ভালো আছে, নিরাপদে আছে। সবাই নিজেদের সংশ্লিষ্ট কাজে সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করছে।’

default-image

নিরাপত্তা হুমকির বিস্তারিত কিংবা কীভাবে নিউজিল্যান্ড দল পাকিস্তান ছাড়বে, সে ব্যাপারেও কোনো মন্তব্য করবে না বলে জানিয়েছে এনজেডসি।

পাকিস্তান সফরে নিউজিল্যান্ড সরাসরি গিয়েছিল বাংলাদেশ সফর শেষে। ২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার ও ম্যাচ অফিশিয়ালদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার পর বেশ কয়েক বছর পাকিস্তান থেকে নির্বাসনে ছিল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। সাম্প্রতিক সময়ে আবারও দলগুলো সফর শুরু করেছে সেখানে, নিউজিল্যান্ডের পর যাওয়ার কথা ছিল ইংল্যান্ডেরও। তবে নিউজিল্যান্ডের এমন আকস্মিক সিদ্ধান্তের পর নিশ্চিতভাবেই আবারও হুমকির মুখে পড়ে গেল পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আয়োজন।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন