default-image

আজ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রথম খবরটি ছড়িয়ে দেন পাকিস্তানভিত্তিক বিভিন্ন ক্রিকেট অনুরাগী। তাঁরা দাবি করেন, আগামীকাল পিএসএলের ফাইনালে মুলতান সুলতানস ও লাহোর কালান্দার্সের ম্যাচে দেখা যাবে রশিদ খানকে। গতকাল ইসলামাবাদ ইউনাইটেডকে ৬ রানে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছে লাহোর। দলটির হয়ে গ্রুপ পর্বে খেলেছেন রশিদ। জাতীয় দলের হয়ে খেলার জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজির খেলা ফেলেই আফগান স্পিনার এসেছেন বাংলাদেশে। বিদায়বেলায় সতীর্থদের কাছ থেকে ‘গার্ড অব অনার’ও পেয়েছেন!

রশিদকে ছাড়া ফাইনালে উঠলেও তাঁর শূন্যস্থান দলটি পূরণ করতে পারেনি। টুর্নামেন্টে ৯ ম্যাচ খেলে ১৩ উইকেট রশিদের। কালান্দার্সে তাঁর চেয়ে বেশি উইকেট পেয়েছেন আরও ৩ জন—শাহিন শাহ আফ্রিদি (১৭), জামান খান (১৬) ও হারিস রউফ (১৫)। কিন্তু এ তিনজনই পেসার। গতকাল দলটির মূল স্পিনারের ভূমিকায় থাকা সামিত প্যাটেল ৪ ওভারে দিয়েছেন ৩৩ রান, কোনো উইকেট পাননি। ১৬৯ রানের লক্ষ্য দেওয়া এক দলের মূল স্পিনারের সঙ্গে মানানসই বোলিং ফিগার নয়। এক ওভার হাত ঘুরিয়ে মোহাম্মদ হাফিজ দিয়েছেন ১৩ রান।

default-image

ওদিকে রশিদ পিএসএলে ১৭.৩০ গড়ে উইকেট পেয়েছেন। ওভারপ্রতি মাত্র ৬.২৫ রান দিয়েছেন। তাই রশিদ ফিরতে পারেন, এমন এক গুঞ্জন বেশ আলোড়ন ছড়িয়েছে! সে উত্তেজনার আগুনে ঘি ঢেলেছেন জিও নিউজের সাংবাদিক আরফা ফিরোজ। টুইট করেছেন, ‘বড় খবর: রোববার ২৭ ফেব্রুয়ারি পিএসএলের ফাইনালে মুলতান সুলতানসের বিপক্ষে রশিদ খানকে পাচ্ছে লাহোর কালান্দার্স।’

এটা যে আচমকা সৃষ্টি হওয়া কোনো গুঞ্জন নয়, সেটা নিশ্চিত করেছেন পাকিস্তানের বিখ্যাত সাংবাদিক উমর ফারুক কালসন। তাঁর টুইট, ‘বড় খবর: পিএসএলের ফাইনালের জন্য রশিদ খানকে পাওয়ার চেষ্টা করছে লাহোর কালান্দার্স।’ পাকিস্তানের যেকোনো খবরের নিশ্চয়তা যে সাংবাদিকের কাছ থেকে খোঁজে মানুষ, পাক প্যাশনের সেই সাংবাদিক সাজ সাদিকও টুইটে লিখেছেন, ‘আগামীকাল মুলতান সুলতানসের বিপক্ষে পাকিস্তান সুপার লিগের ফাইনালে রশিদ খানকে পাওয়ার চেষ্টা করছে লাহোর কালান্দার্স।’

default-image

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট চলছে, সিরিজের দলের অবস্থা ভালো নয়, এই অবস্থায় রশিদের বাংলাদেশ ছেড়ে পাকিস্তান যাওয়া নিশ্চিতভাবেই আলোড়ন তুলত। বাংলাদেশের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে ৩ মার্চ। এর মধ্যে চাইলেই পিএসএল খেলে বাংলাদেশে ফেরা সম্ভব—এ ভাবনাটা গুঞ্জনকে উড়িয়ে দিতে আপত্তিও জানাচ্ছিল। কিন্তু রশিদ খান আপাতত এতটা আলোড়ন তোলার ঝুঁকি নিচ্ছেন না। চট্টগ্রামে দলের তৃতীয় ওয়ানডেতেও থাকবেন।

এ ব্যাপারে আফগানিস্তান দলের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে প্রথম আলো। আফগান ক্রিকেট বোর্ডের ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের উপপ্রধান মিনহাজ রাজ প্রথম আলোকে বলেছেন, ‘আফগান খেলোয়াড়রা সব সময় জাতীয় দলে খেলতে পারাকে গর্ব বলে মানে। রশিদও তেমনটাই ভাবেন। আমি এই মুহূর্তে তাঁর সঙ্গেই বসে আছি।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন