বিজ্ঞাপন

কীভাবে এ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পরিকল্পনা আলোর মুখ দেখল, সেটির পেছনের গল্প জানিয়েছেন সেখানে নিয়মিত ক্রিকেট খেলতে থাকা ভারতীয় ও পাকিস্তানি তরুণীদের মধ্যে বয়োজ্যেষ্ঠ, ২০ বছরের হিফসা বাট।

হিফসা যখন মাধ্যমিকের ছাত্রী, তাঁদের শারীরিক শিক্ষার শিক্ষক স্কুলের সময়ের পর ক্রিকেট খেলার প্রস্তাব দেন। এরপর হিফসার বাবা সবাইকে ক্রিকেট খেলার খুঁটিনাটি ধরিয়ে দেন।

‘তিন বছর আগে মাধ্যমিক স্কুলে সবকিছু শুরু হয়েছিল, যখন আমাদের শারীরিক শিক্ষার শিক্ষক এসে বললেন, ‘‘আমরা এখন থেকে স্কুলের সময়ের পর খেলার জন্য একটা ক্রিকেট ক্লাব করব। কে কে যোগ দিতে চাও?’’...আমার বাবা আমাদের কীভাবে খেলতে হয়, সেটা দেখিয়ে দিয়েছেন, এরপর আমরা নিজেরা নিজেরা খেলতে শুরু করলাম’—ইংলিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানে বলছিলেন হিফসা।

খেলাটা পছন্দ হলো তরুণীদের। নিজেরা নিজেরা এরপর একটা ইনডোর ক্রিকেট লিগ আয়োজন করেন। ক্রিকেট মাঠ হিসেবে কাজে লাগানো হয় মন্তিউর একটা বাস্কেটবল মাঠকে। কিন্তু এভাবে আর কত দিন! মেয়েরা এখন চান, তাঁদের নিজেদের একটা ক্রিকেট মাঠ হোক। যেখানে সবুজ ঘাস থাকবে, কাঠের বল থাকবে, ব্যাট-প্যাড সব থাকবে।

default-image

‘একেবারে যথাযথভাবে ক্রিকেট খেলতে চাই আমরা। ১১ ক্রিকেটার নিয়ে। কাঠের বলে, ইনডোরে যে টেনিস বল দিয়ে খেলি, সেটাতে নয়। সে কারণে আমাদের এখন একটা যথাযথ ক্রিকেট মাঠ দরকার, যেখানে সিনথেটিক নয়, সত্যিকারের ঘাস থাকবে’—বললেন হিফসা।

বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানের মতো ক্রিকেটপ্রেমী দেশের অনুভবটা স্পেনেও ছড়িয়ে দিতে চান তাঁরা। হিফসার কথা, ‘আমরা পাকিস্তান ও ভারতের মেয়ে, যে দেশগুলো ক্রিকেট কী, সেটা জানে। আমরা এখন স্পেনে এ খেলার খবর ছড়িয়ে দিতে চাই।’

সে পথে যাত্রাটা একেবারে সহজ অবশ্য হবে না। প্রথমত স্টেডিয়াম যে বানাবে, সেটির জায়গা তো ঠিক করতে হবে। বার্সেলোনা ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট ক্লাবের অস্ট্রেলিয়ান সভাপতি ড্যামিয়েন ম্যাকমিউলেন বলছিলেন, ‘সমতল এবং ১৬০০ বর্গমিটার জায়গাজুড়ে আছে...এমন একটা জায়গা খুঁজে বের করা বার্সেলোনায় প্রায় অসম্ভব।’

আপাতত মন্তিউর ছোট পাহাড়ের ওপরের সমতল চূড়াতে অ্যাস্ট্রোটার্ফ ক্রিকেট পিচ নিয়ে মাঠটা বানানোর পরিকল্পনা। প্রায় ১.২ মিলিয়ন বা ১২ লাখ ইউরোর এই পরিকল্পনাই বার্সেলোনার ক্রীড়াপ্রকল্পের পরিকল্পনা নিয়ে ভোটে ছক্কা হাঁকিয়েছে!

বার্সেলোনা যে রাজ্যের শহর, সেই কাতালুনিয়ায় এরই মধ্যে ২০টা ক্রিকেট ক্লাবও হয়ে গেছে বলে জানালেন ম্যাকমিউলেন। এই ক্লাবগুলোতে প্রায় ৭০০ ক্রিকেটার আছেন। মাদ্রিদ, আলিকান্তে, ভ্যালেন্সিয়া ও মিনোর্কাতেও এরকম ক্রিকেট খেলুড়ে দল আছে বলে জানিয়েছেন ম্যাকমিউলেন।

ইংলিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান জানাচ্ছে, মিনোর্কার দলটা পুরোপুরি ইংলিশ খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া। বার্সেলোনার ক্লাবগুলোতে মূলত নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড, ভারত ও পাকিস্তানের ক্রিকেটার বেশি। লিগের কয়েকটা দল পুরোপুরিই ভারতীয়, পাকিস্তানি ও বাংলাদেশিদের নিয়ে গড়া বলে লিখেছে দ্য গার্ডিয়ান।

পাশের বাদালোনা অঞ্চলের ক্রিকেট ক্লাবের সভাপতি নাদিম আরমান যেমন দ্য গার্ডিয়ানে বলেছেন, তাঁর ক্লাব প্রায় পুরোটাই পাকিস্তান আর বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের নিয়ে তৈরি। তবে এখানে একটা সমস্যা দেখছেন নাদিম, ‘সমস্যাটা হলো আমাদের খেলার কোনো জায়গা নেই, আর সে কারণে মানুষকে এ খেলায় টেনে আনা আরও কঠিন হচ্ছে।’ তবে ম্যাকমিউলেনের সঙ্গে সুর মিলিয়ে তিনিও জানিয়েছেন যে, বার্সেলোনায় সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ক্রিকেটের গ্রহণযোগ্যতা বেড়েই চলেছে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন