বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

কোহলি এই বিশ্বকাপের পর ভারতের টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক আর থাকবেন না, সে ঘোষণা আগেই দিয়েছিলেন। আর ভারতের ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সঙ্গে শাস্ত্রীর চুক্তি শেষ বিশ্বকাপের পর, এরই মধ্যে কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান রাহুল দ্রাবিড়কে নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে ভারত।

তার আগে শেষ ‘অ্যাসাইনমেন্ট’টা দুঃস্বপ্নের মতো কেটেছে কোহলি-শাস্ত্রীর। তবে অ্যাসাইনমেন্টের শেষ ম্যাচটা অন্তত ভালো কিছু করে দেখিয়েছে ভারত। নামিবিয়ার মতো দলের বিপক্ষে চার-ছক্কার বৃষ্টি ঝরানোকে ভয়ডরহীন ক্রিকেট হয়তো বলা যাবে না, তবে ভারতের ক্রিকেটটা টি-টোয়েন্টির সঙ্গে মানানসই-ই হয়েছে।

আগেই বিদায় নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় এ ম্যাচে ভারত পুরো শক্তির দল নিয়ে না-ও নামতে পারে, এমন একটা ধারণার কথা কাল জানিয়েছিল ভারতীয় দৈনিক দ্য হিন্দু। কিন্তু কোহলি-শাস্ত্রীর শেষ বলেই কি না, ভারত নেমেছে পূর্ণশক্তির দল নিয়েই।

বোলিংয়ে বুমরা-শামি-অশ্বিন-জাদেজারা ছিলেন, ব্যাটিংয়ে কোহলি-রোহিত-পন্ত-রাহুলদের সবাই।পাশাপাশি আইপিএলে আলো ছড়ানো সুর্যকুমার যাদবকেও এ ম্যাচে ফিরিয়েছে ভারত।

এমন ব্যাটিংয়ের সামনে নামিবিয়ার ১৩২ রান তো এক ফুৎকারে উড়ে যাওয়ার মতো। রোহিত শর্মা আর লোকেশ রাহুলের জোড়া অর্ধশতকের পাশাপাশি সূর্যকুমারের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে লক্ষ্যটা পেরোতে গায়েই লাগেনি ভারতের।

রোহিত ইনিংসে বেশ কয়েকটি সুযোগ দিয়েছেন। ইনিংসের তৃতীয় বলেই আউট হতে পারতেন তিনি! কিন্তু সেবার ফাইন লেগে ক্যাচ না হয়ে উল্টো চার হলো। তার পরের ওভারে মিড অনে রোহিত ক্যাচ দিলেও সেখানে ক্যাচটা ধরার মতো কেউ ছিলেন না।

default-image

সেই রোহিতই ভারতের হয়ে আক্রমণ শুরু করেছেন। প্রথম তিন ওভারে তো উদ্বোধনী জুটিতে রোহিতের সঙ্গী রাহুল বলই খেলতে পেরেছিলেন মাত্র তিনটি, ততক্ষণে রোহিতের রান হয়ে গেছে ২৫। ভারতের রান তখন ২৬। চতুর্থ ওভারে নিজের ইনিংসের চতুর্থ বলে ছক্কা মেরে আক্রমণে যোগ দেন রাহুলও। এরপর? বল সাঁই-সাঁই উড়ে গেছে শুধু বাউন্ডারিতে।

দশম ওভারের পঞ্চম বলে ডিপ মিড-উইকেটে মারতে গিয়েছিলেন রোহিত, কিন্তু ব্যাটের ওপরের দিকের কানায় লেগে উল্টো উইকেটকিপারের হাতে ধরা পড়লেন। ৮৬ রানে ভাঙল ভারতের উদ্বোধনী জুটি, তার মধ্যে ৫৬ রানই রোহিতের। ৩৭ বলের ইনিংসটিতে রোহিত চার মেরেছেন ৭টি, ছক্কা দুটি। ভারতের ইনিংসে সব মিলিয়ে চার ছক্কার অন্য দুটি রাহুলের। তিনি শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকলেন ৩৬ বলে ৫৪ রান করে। চার মেরেছেন ৪টি।

কোহলির অধিনায়ক হিসেবে শেষ ম্যাচ, কিন্তু কোহলি এ ম্যাচে ব্যাটিংয়ে নামলেন না। রোহিত আউট হওয়ার পর তিনে পাঠানো হয় সূর্যকুমারকে। তিনিও চার মারায় কম যাননি! ১৯ বলে ২৫ রান করে অপরাজিত ছিলেন, তার মধ্যে ১৬ রান করেছেন ৪টি চার মেরে!

এর আগে নামিবিয়া যে ১৩২ রান করতে পেরেছে, সে-ই এক সময় ভাবনার বাইরে ছিল। ভারতের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হিসেবে নিজের শেষ ম্যাচে কাল টস জিতে নামিবিয়ানদের ব্যাটিংয়ে পাঠান কোহলি। নামিবিয়াকে অল্পতে আটকে রেখে দ্রুত ম্যাচ শেষ করাই হয়তো উদ্দেশ্য ছিল ভারত অধিনায়কের।

তবে আগের ম্যাচের স্কটল্যান্ডের মতো কাল নামিবিয়ার ব্যাটিংয়ে ধস নামাতে পারেনি ভারতীয় বোলাররা। রান তোলার গতি একটু কম থাকলেও পুরো ২০ ওভারই খেলেছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নবাগত দলটি।

নামিবিয়ার উদ্বোধনী জুটি ভাঙতে ২৮ বল লেগেছে ভারতের। যশপ্রীত বুমরা যখন মাইকেল ফন লিনগেনকে ফিরিয়ে দলকে প্রথম উইকেট উপহার দিলেন নামিবিয়ার রান ৩৪। পরের ওভারে রবীন্দ্র জাদেজা ক্রেইগ উইলিয়ামসকে স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেলে স্কোরটাকে বানিয়ে দিলেন ২ উইকেটে ৩৪। স্টিভেন বার্ড ও নিকোল লোফটি-ইটনরা দ্রুত ফিরে গিয়ে স্কোরটাকে বানিয়ে ফেলেন ৪ উইকেটে ৪৭।

এরপর অধিনায়ক গেরহার্ড এরাসমাসকে (১২) নিয়ে ২৫ রানে জুটি ডেভিড ভিসার। এবারের বিশ্বকাপে ব্যাট হাতে ২২৭ রান করা নামিবিয়ান অলরাউন্ডার ভিসা কাল ইনিংস সর্বোচ্চ ২৬ রান করে ফিরেছেন বুমরার দ্বিতীয় শিকার হয়ে। তাঁর বিদায়ের পর নামা রুবেন ট্রাম্পেলমান ৬ বলে ১৩ রান করে স্কোরটাকে নিয়ে যান ১৩০ এর ঘরে।

ভারতীয় বোলারদের মধ্যে ৩টি করে উইকেট নেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবীন্দ্র জাদেজা। অশ্বিন ৪ ওভারে দিয়েছেন ২০ রান, জাদেজা সমান ওভারে ১৬ রান।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন